• সংসদকে কটাক্ষ করে প্রধান বিচারপতি জনগণকেই কটাক্ষ করেছেন ... মেনন

    ‘সংসদকে কটাক্ষ করার অর্থ জনগণকেই কটাক্ষ করা। জনগণ রাষ্ট্রের মালিক। আর তাদের সেই মালিকানাকে কার্যকর করে সংসদের মাধ্যমে। সেই সংসদকে অপরিপক্ক অকার্যকর বলার অর্থ জনগণের বিচার বুদ্ধি সম্পর্কে প্রশ্ন তোলা। প্রধান বিচারপতি ষোড়শ সংশোধনী রায়ে তার পর্যবেক্ষণে অপ্রাসঙ্গিকভাবে সংসদকে টেনে সেই জনগণকেই অসম্মান করেছেন। প্রধান বিচারপতি যদি তার ঐ মন্তব্য স্বত্বপ্রনোদিত প্রত্যাহার করে নেন সেটা ভালো। নইলে সংসদকেই তার সম্মান রক্ষায় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।’আজ ২৬ আগস্ট শনিবার গাজীপুরে বঙ্গতাজ মিলনায়তনে জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির কর্মী সমাবেশে পার্টির সভাপতি কমরেড রাশেদ খান মেনন একথা বলেন। গাজীপুর জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি আব্দুল মজিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে মেনন বলেন, ‘আইনসভা, বিচারবিভাগ ও নির্বাহী বিভাগ রাষ্ট্রের তিনটি স্তম্ভ। কেউ কাউকে অসম্মান করে বা ছোট করে নিজের সম্মান রক্ষা করা যাবে না। তাই বিচারবিভাগের সম্মান অক্ষুন্ন রাখতেই সংসদের সম্মান রাখতে হবে।’ মেনন ষোড়শ সংশোধনী রায় নিয়ে বিতর্কে বাংলাদেশের জনগণকে পাকিস্তানের জনগণের সাথে তুলনা করায় প্রধান বিচারপতির তীব্র সমালোচনা করেন। মেনন বলেন বাংলাদেশের জনগণের দীর্ঘ গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ঐতিহ্য রয়েছে যা পাকিস্তান সম্পর্কে কল্পনাও করা যায় না। বাংলাদেশের জনগণ ও পাকিস্তানের জনগণ এক নয়। বাংলাদেশের জনগণ যে কোন অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে, করতেই থাকবে। ষোড়শ সংশোধনী রায়ের ক্ষেত্রে তাই হয়েছে। এনিয়ে প্রধান বিচারপতির আশ্চর্য্য হওয়ার কিছু নাই। বিরূপ মন্তব্য করার কোন অবকাশ নাই।মেনন আরও বলেন, ষোড়শ সংশোধনীর রায় বিএনপির হাতে ষড়যন্ত্রের অস্ত্র তুলে দিয়েছে। তারা এটা ব্যবহার করে এখন সরকার ও বিচারব্যবস্থা সম্পর্কে নানাবিধ বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। কিন্তু এই ষড়যন্ত্র সফল হবে না। জনগণ আন্দোলনের ধারায় বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারাকে এগিয়ে নেবে।সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন পার্টির পলিটব্যুরো সদস্য নুর আহমদ বকুল, ধান গবেষণা কেন্দ্রের সাবেক মহাপরিচালক জীবন কৃষ্ণ বিশ্বাস, গাজীপুর জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক মীর দেলোয়ার হোসেন, কৃষি গবেষণা শ্রমিক সমিতির সহ সভাপতি লেহাজউদ্দীন লাহু প্রমুখ। সভার শুরুতে গাজীপুর জেলা কমিটির সদস্য ও কৃষি ফার্ম শ্রমিক নেতা আব্দুল লতিফের মৃত্যুতে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে একমিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

  • বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে আবারও ক্ষমতায় আনবে ---- এনামুল হক শামীম

    আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম বলেছেন, আগামী নির্বাচনে জনগন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে আবারও ক্ষমতায় আনবে। কারণ বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়ন ও জনগনের কল্যাণের জন্য রাজনীতি করেন। বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে তিনি হতেন বিশ^ নেতা। আর বঙ্গবন্ধু জন্ম নিয়েছিলেন বলেই দেশ স¦াধীন হয়েছে, বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছে। বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ অভিন্ন। যে কারণে এদেশের মানুষ রাষ্ট্রপতি হয়, প্রধানমন্ত্রী হয়, প্রধান বিচারপতি, পুলিশ প্রধান হয়, সেনা প্রধান হয়। শুক্রবার রাতে শরীয়তপুরের সখিপুর ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বঙ্গবন্ধু’র ৪২তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সখিপুর থানা আওয়ামীলীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে শেখ হাসিনার সরকারের বিকল্প নেই। আর নৌকায় ভোট দিলে উন্নয়ন ও শান্তি পাবেন। তাই আগামীতেও  নৌকায়  ভোট দেওয়ার আহবান জানাই। সখিপুর থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি হুমায়ুন কবির মোল্যার সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার, সাধারন সম্পাদক অনল কুমার দে, নড়িয়া উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম ইসমাইল হক, ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান সিকদার, আবুল হাসেম দেওয়ান, জিতু মিয়া বেপারী, কামরুজ্জামান মানিক সরদার, জসিম উদ্দিন মাদবর, আব্দুর রাজ্জাক পিন্টু, জেলা পরিষদের সদস্য নাছির উদ্দিন পাইক, আবুল মনসুর আজাদ ভিপি শামীম, আনোয়ার হোসেন বালা, আলমগীর হোসেন, আওয়ামীলীগ নেতা অ্যাডভোকেট আব্দুল আউয়াল, জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আলাউদ্দিন আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক কাওসার আহম্মেদ তকি, যুবলীগ নেতা খালেক খালাসী, স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় নেতা আসাদুজ্জামান খোকন, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক নুর এ আলম আশিক, উপ-বিজ্ঞান সম্পাদক ইকবাল হোসেন সিপন, সখিপুর থানার সভাপতি পলাশ সরদার, সাধারন সম্পাদক জনি মাঝি, আওয়ামীলীগ নেতা মনির হোসেন সুমন প্রমূখ।  এর আগে তিনি (একেএম এনামুল হক শামীম) সখিপুরের চরভাগা ইউনিয়নের নতুন বাজার ও মমিন আলী বাজার সহ বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ ও পথসভা করেন। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন, চরভাগা ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান সিকদার, মুলাদীর সফিপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু মুসা হিমু মুন্সী প্রমূখ। এসময় তিনি শেখ হাসিনার জন্য  দোয়া চান এবং নৌকায়ও ভোট চান।

  • ক্ষতি গ্রস্থ গরিব লোকদের মাঝে বিএনপি’র ত্রান বিতরন

    দিনাজপুরে টানা বর্ষনে বন্যায় ফুলবাড়ী উপজেলার এলুয়াড়ী ইউনিয়ন ও শিবনগর ইউনিয়নে ব্যাপক ক্ষতি হওয়ায় ফুলবাড়ী থানা বিএনপি’র সভাপতি অধ্যক্ষ খুরশিদ আলম মতি গরিব লোকদের মাঝে ত্রান বিতরন করেন। গতকাল শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টায় ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের ঘাটপাড়া এলাকায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ আদর্শ কলেজে আশ্রয় নেয়া মানুষদের মাঝে ত্রান বিতরন করেন। একই ভাবে উপজেলার এলুয়াড়ী ইউনিয়নের শিবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে আশ্রয় নেয়া মানুষদের মাঝে ত্রান বিতরন করেন। ত্রানের মধ্যে ছিলো চিড়া, গুড়,মুড়ি ও ঔষধ। প্রায় ৪শতাধিক গরিবদের মাঝে ত্রান বিতরন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. এহেতেশাম রেজা, জেলা কমিটির সদস্য ও থানা বিএনপি’র সভাপতি বিশিষ্ঠ শিল্পপতি অধ্যক্ষ খুরশিদ আলম মতি, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. শফিউল ইসলাম, থানা বিএনপি’র সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জুলফিকার আলী, থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক মো. নবাব আলী, শিবনগর ইউপির বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক মো. মতিয়ার রহমান। স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ,ইউপি সদস্য ও সাংবাদিক বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

  • ষোড়শ সংশোধনী সম্পর্কিত রায়ের পর্যবেক্ষণ কোনভাবেই ইতিহাস সম্মত নয় ---- রাশেদ খান মেনন

    ‘ষোড়শ সংশোধনী সম্পর্কিত রায়ের পর্যবেক্ষণ কোনভাবেই ইতিহাস সম্মত নয়। এটা সত্য কথা যে বাংলাদেশের সংবিধানে ‘আমরা জনগণ’ কথাটি আছে। কিন্তু ইতিহাসের সত্য হচ্ছে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ বঙ্গবন্ধুর নামেই পরিচালিত হয়েছে। এমনকি আমরা সেদিন নিজেদের সংগঠনের ব্যানারে সংগ্রাম করেছি তারাও বঙ্গবন্ধুকেই সামনে নিয়ে ঐ সংগ্রাম করেছি। অথচ প্রধান বিচারপতি তার পর্যবেক্ষণে বিষয়টি এমনভাবে উপস্থাপন করেছেন যাতে মনে হয় ইতিহাসের সত্য হিসেবে নয়, তাকে জোর করে বাংলাদেশের নেতৃত্বে প্রতিস্থাপন করা হচ্ছে। এটা স্পষ্ট যে ষোড়শ সংশোধনীর রায় পরিপূর্ণভাবে বিদ্বেষপ্রসুত। দেশের কোন অংশের মানুষের কাছে এই রায় গ্রহণযোগ্য নয়।’ আজ ১৪ আগস্ট বিকেল ৪টায় তোপখানাস্থ পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয় শোক দিবসের প্রাক-প্রস্তুতি সভায় ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন একথা বলেন। মেনন বলেন, সংসদকে অবমূল্যায়ন করে গণতন্ত্রের স্বার্থ বা বিচারবিভাগের স্বাধীনতা রক্ষিত হতে পারে না। প্রধান বিচারপতি যতই অস্বীকার করুন সংসদ জনগণের প্রতিনিধি জাতীয় স্বার্থকে উর্ধে তুলে ধরবেই। জাতীয় শোক দিবস প্রাক-প্রস্তুতির এই সভায় উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরোর সদস্য কামরূল আহসান, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য তপন দত্ত, বিকল্প সদস্য মোস্তফা আলমগীর রতন, নগর কমিটির সভাপতি আবুল হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক কিশোর রায়, নারী মুক্তি সংসদের যুগ্ম সম্পাদক শিউলী শিকদার, যুব মৈত্রীর সভাপতি সাব্বাহ আলী খান কলিন্স, যুবনেতা আতিকুর রহমান, তাপস দাস, ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি ফারুক আহমেদ রুবেল, সাধারণ সম্পাদক কাজী আব্দুল মোতালেব জুয়েল, সহ-সভাপতি অতুলন দাস আলো প্রমুখ।

  • দেশের বন্যার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান

    বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপি দেশের বন্যার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য পার্টির সকল ইউনিটের নেতা-কর্মীদের আহ্বান জানিয়েছেন। আজ ১৮ আগস্ট বিকেল ৪টায় তোপখানা রোডস্থ শহীদ আসাদ মিলনায়তনে পার্টির ঢাকা-৮ নির্বাচনী এলাকার পার্টি ইউনিটসমূহের এক যৌথসভায় এই আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, পার্টির উত্তরাঞ্চলের জেলা ইউনিটসমূহ রংপুর, দিনাজপুর, গাইবান্ধায় ত্রাণ তৎপরতা শুরু করেছে। সেখানে পানি কিছুটা নামলেও পুনরায় পানি বাড়ার সম্ভাবনা এবং ঢাকার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলসহ খোদ ঢাকাতেও এই বন্যার প্রকোপ ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। এ কারণে ঢাকার কর্মীদের বিশেষভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। তিনি পানি নামার সাথে সাথে কৃষি পুনর্বাসনের বিষয়ে বিশেষ গুরুত্বআরোপ করেন। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ঢাকা মহানগর কমিটির সভাপতি আবুল হোসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন পার্টির পলিটব্যুরোর সদস্য কামরূল আহসান, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য তপন দত্ত, কেন্দ্রীয় বিকল্প সদস্য মোস্তফা আলমগীর রতন, বাংলাদেশ যুব মৈত্রীর সভাপতি সাব্বাহ আলী খান কলিন্স, নারী মুক্তি সংসদের যুগ্ম সম্পাদক শিউলী শিকদার, গার্হস্থ্য নারী শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মুর্শিদা আক্তার নাহার, মহানগর সাধারণ সম্পাদক কিশোর রায় প্রমুখ। সভায় বন্যায় নিহত ও আহতদের প্রতি সমবেদনা জানান হয়।

  • ধর্ম নিরপেক্ষতাকে আড়াল করে জঙ্গিবাদী সন্ত্রাস মোকাবেলা করা যাবে না

    জঙ্গিবাদী সন্ত্রাস রুখতে হলে সংবিধানের মূলনীতি ধর্মনিরপেক্ষতাকে সামনে নিয়ে আসতে হবে। কারণ ধর্মনিরপেক্ষতাকে আড়াল করে জঙ্গিবাদী সন্ত্রাস মোকাবেলা করা যাবে না। জঙ্গিবাদকে রুখব বল্লেই হবে না, জঙ্গিবাদকে রুখার জন্য অসাম্প্রদায়িক মুক্তিযুদ্ধের চেতনার রাজনীতিকে স্পষ্ট করতে হবে। বাংলাদেশের বহুমুখী সন্ত্রাসকে রুখে গণতন্ত্র, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও অসাম্প্রদায়িক সমাজ বিনির্মাণের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য আদর্শিকভাবে ঐক্যবদ্ধ লড়াই করতে হবে। তার জন্য এ লড়াইয়ের মুখ্য ভূমিকা পালনকারী জনগণকে সংগঠিত করতে হবে। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি আয়োজিত আলোচনা সভায় পার্টির সভাপতি এবং বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। আজ বিকেল ৩টায় রাজধানীর বিএমএ মিলনায়তনে রাশেদ খান মেননের হত্যাচেষ্টার ২৫তম বার্ষিকীতে সন্ত্রাসবিরোধী দিবস উপলক্ষে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। “বাংলাদেশে সন্ত্রাসের বহুমুখীতা : গণতন্ত্র, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও অসাম্প্রদায়িক সমাজ বিনির্মাণের চ্যালেঞ্জ” শীর্ষক আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশিষ্ট নিরাপত্তা বিশ্লেষক ও মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশিদ। আলোচনা সভায় ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, জঙ্গিবাদী সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ওয়ার্কার্স পার্টির আহ্বান স্পষ্ট ছিল বলেই আমরা সেদিন বলেছিলাম বিএনপি-জামাত আর না। আমাদের বাস্তবমুখী অবস্থানের কারণে ১৪ দলীয় ঐক্যজোট গঠন করে আজকের বাংলাদেশে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক যাত্রা অব্যাহত রয়েছে। এ যাত্রায় আমরা কখনই সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের সাথে আপোষ করব না। আলোচনা সভায় ইতিহাস বিশ্লেষক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মুনতাসির মামুন বলেন, রাষ্ট্রীয়ভাবে সন্ত্রাস, দুর্নীতি ও লুটপাট করলে তার বিচার করা যাবে, কিন্তু বিচারকদের বিচার করা যাবে না তা হয় না। ঐক্যবদ্ধভাবে রাষ্ট্রের সন্ত্রাসের বহুমুখীতা প্রতিরোধ করতে হবে। ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলেন, বাংলাদেশ জাস্টিস রিপাবলিক হবে না। এদেশ পিপলস্্ রিপাবলিক ছিল, আছে এবং থাকবে। রাষ্ট্রের মালিক জনগণ। তাই বাংলাদেশকে নিয়ে সকল প্রচার ষড়যন্ত্র জনগণই ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিহত করবেন। আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, মুক্তিযোদ্ধা, নাট্যজন নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু। আলোচনা সভা পরিচালনা করেন ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরো সদস্য কমরেড কামরূল আহসান। 

  • চকবাজার থানা বিএনপির সদস্য সংগ্রহ অভিযান উদ্বোধন

    বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি চকবাজার থানার উদ্যোগে পুরান ঢাকার হোসনী দালান এলাকায় বিএনপির প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম অভিযানের উদ্বোধন করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল। সভাপতিত্ব করেন চকবাজার থানা বিএনপির সদস্য সচিব কাউন্সিলর হাজী আনোয়ার পারভেজ বাদল। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার। আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, আশরাফ আলী আজম, আলহাজ¦ মোশাররফ হোসেন খোকন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খতিবুর রহমান খোকন, লতিবুল্লাহ জাফরু, সহ-সম্পাদক সাবেক কমিশনার সাহিদা মোর্শেদ, চকবাজার থানা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক সাবেক কাউন্সিলর হাজী হুমায়ুন কবির, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর শামসুন্নাহার ভূঁইয়া, সিঃ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর সুরাইয়া, লালবাগ থানা মহিলা দলের সদস্য সচিব কাউন্সিলর নাসরিন রশীদ পুতুল, চকবাজার থানা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক হাজী সালেম, হাজী নাসির, হাজী মোঃ কুতুব, মোঃ শাহজাহান খান, হাজী সাবের, ৩০নং ওয়ার্ড বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হাদী, বিএনপি নেতা দেওয়ান মজিবর রহমান, মোতাহার হোসেন, মোঃ ইলিয়াস, মোঃ শাহিন, চকবাজার থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের সিঃ যুগ্ম আহ্বায়ক আসাদুল ইসলাম, যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ মুসা ফরাজী, সাইদুর রহমান রিগ্যান, মিঞা মোঃ হাসান, কামাল উদ্দিন কালু, সদস্য মাহফুজ আহমেদ, আকাশ আহমেদ প্রমুখ।

  • আওয়ামী লীগের গুলিতে গণতন্ত্র প্যারালাইজড: রিজভী

    বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, দেশে যেভাবে আওয়ামী লীগ গুলি চালাচ্ছে তাতে গণতন্ত্র প্যারালাইজড হয়ে গেছে। শুক্রবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসসব কথা বলেন। রুহুল কবির রিজভী ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ্য করে বলেন, নিজেদের চেহারা আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে দেখে নিন। তিনি বলেন, দেশে যেভাবে গুম, খুন, গুপ্ত হত্যার ভয়াল পরিবেশে মানুষের মনের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হচ্ছে তা দূর করার ব্যবস্থা করুন। রিজভী আ,লীগকে উদ্দেশ্য করে বলেন. অতি দ্রুত সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যাবস্থা করুন। তিনি বলেন, প্রশাসনের লোকেরা যখন দলীয় আচরণ করেন তাতে জনগণের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হচ্ছে। রিজভী বলেন, ৫৭ ধারার মাধ্যমে সাংবাদিকদের নির্যাতন করছে সরকার। তিনি আরো বলেন, আইনমন্ত্রী ৫৭ ধারা বাতিল করার কথা বললেও সেই স্থান থেকে ফিরে এসেছেন। গ্রেপ্তারকৃত সাংবাদিকদের অবিলম্বে মুক্তির দাবি জানান রিজভী। আরো উপস্থিত ছিলেন তৈমুর আলম খন্দকার, শহিদ উদ্দিন চৌধুরি এনি, এ্যাড. আব্দুস সালাম আজাদ, এ্যাড মাসুদ আজাদ তালুকদার, এ্যাড. সানাউল্লাহ মিয়া, মীর শরাফাত আলী সপু প্রমুখ। 

  • ফুলবাড়ী স্বেচ্ছাসেবক লীগের দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

    ফুলবাড়ী উপজেলার দারুস সুন্নাহ্ সিদ্দিকীয়া ফাজিল মাদ্রাসা মাঠে স্বেচ্ছাসেবক লীগের দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার দারুস সুন্নাহ্ সিদ্দিকীয়া ফাজিল মাদ্রাসা মাঠে দিনাজপুর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক মো. জাকারিয়া জাকির এর আয়োজনে গত ২৩ জুন শুক্রবার দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।এ সময় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, দিনাজপুর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক মো. জাকারিয়া জাকির।বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর স্বেচ্ছাসেবক লীগের জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রাকিবুল হাসান। সেচ্ছাসেবক লীগের জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মো.তছলিম উদ্দিন। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের দপ্তর সম্পাদক মো. তাইজুল ইসলাম দিলু, সহ-প্রচার সম্পাদক মো. মজিবুর রহমান সজিব, শহর ছাত্রলীগের যুগ্ন আহবায়ক মো. হারুন উর রশিদ রায়হান। জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের গ্রন্থা ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. রাশেদুর রহমান রাশেদ, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক মো. শাহিনুর রশিদ(বাবু), মুক্তি যোদ্ধা বিষয় সম্পাদক ও প্রভাষক মো. শহিদুল ইসলাম। আরও উপস্থিত ছিলেন, ফুলবাড়ী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক মো. মেহেদী হাসান মিঠু, মো. ফিজার , মো. রুহুল আমিন, মো. বাপ্পি. মো. ফয়ছাল , মো. হেলাল , মো. হামিদুল, পার্বতীপুর স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মো. আমজাদ. মো. হাবিব,মো. রিয়জুল,কমল,মো. করিম ও মো. মুকুল প্রমুখ। ইফতার মাহফিলে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রায় ২ হাজার নেতা কর্মী অংশ নেন। এ ছাড়া স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দু , ব্যবসায়ী, সুধিজন ও সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

  • ফুলবাড়ীর যুবলীগের ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

    ফুলবাড়ী রাবিয়া কমিউনিটি সেন্টারে যুবলীগের ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ফুলবাড়ীর রাবিয়া কমিউনিটি সেন্টারে যুবলীগের আয়োজনে ২২ জুন বৃহঃস্পতিবার ফুলবাড়ী পৌর ৫নং ওয়ার্ডের মো. আপেল মাহমুদ সরকার এর সভাপতিত্বে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, সদস্য,কেন্দ্রীয় কমিটির মো. সফেদ আশফাক তুহিন। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন, ফুলবাড়ী যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মো. আলাউল হোসেন। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ফুলবাড়ী পৌর ৪নং ওয়ার্ডের ফুলবাড়ী যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মো. আসলাম হোসেন। ইফতার মাহফিলে যুবলীগের প্রায় ৪শতাধিক নেতা কর্মী, স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, ব্যবসায়ী, সুধিজন ও সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

  • মধুখালীতে আওয়ামীলীগের ইফতার ও দোয়ার মাহফিল

    মধুখালীতে উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়ার অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার বিকেলে মধুখালী উপজেলা মাল্টিপারপাস মিলনায়তনে মধুখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মির্জা মনিরুজ্জামান বাচ্চুর সভাপতিত্বে ও সাংগনিক সম্পাদক পিকু আহসান হাসিবের সঞ্চালনায় ইফতার দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ রেজাউল হক বকু। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আজিজুর রহমান মোল্যা, ফরিদপুর চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ আকমল হোসেন,মধুখালী পৌর মেয়র খন্দকার মোরশেদ রহমান লিমন,সরকারী আইনউদ্দিন কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মোঃ নাজমুল হক, মধুখালী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রুহুল আমীন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি হাজী আঃ সালাম মিয়া,মির্জা হাজী আঃ করিম,যুগ্ম সাধারন সম্পাক মোঃ ইলিয়াস মিয়,মোঃ শহিদুল ইসলাম,ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরো সদস্য মনোজ সাহা, উপজেলা সম্পাদক আবু সাইদ মিয়া,সিপিবি সাবেক উপজেলা সভাপতি হাজী আঃ মালেক শিকদার,ফরিদপুর জেলা পরিষদের সদস্য সুরাইয়া সালাম,দেব প্রসাদ রায়, উপজেলা আওয়ামীলীগের ধর্মীয় সম্পাদক সৈয়দ এটিএম মাসুদ ও বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগন এবং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি - সাধারন সম্পাদক ও অঙ্গসংগঠনের নেতা কর্মীবৃন্দ। দোয়া পরিচালনা করেন উপজেলা ওলামালীগের সভাপতি মওলানা মোঃ রফিকুল ইসলাম। ফরিদপুর -১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য মোঃ আব্দুর রহমান এবং দেশ ও জাতীর জন্য দোয়া করা হয় । 

  • রাষ্ট্রের ‘সবচাইতে শক্তিশালী ব্যক্তি’র প্রশ্রয়ে দেশে সন্ত্রাসীরা উৎসাহিত হচ্ছে... রিজভী

    রাষ্ট্রের ‘সবচাইতে শক্তিশালী ব্যক্তি’র প্রশ্রয়ে দেশে সন্ত্রাসীরা উৎসাহিত হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, যারা প্রাকৃতিক মহা দুযোর্গে নিপতিত উপদ্রুত অসহায় মানুষকে ফেলে নির্ভিগ্নে বিদেশ সফর করতে পারে, তারা সবকিছুই করতে পারে। জনগন দেখলো সরকারি সন্ত্রাস ও গন্ডামির অভিনব বেপরোয়া, উদ্ধত্য ও সন্ত্রাসের আশ্রয়প্রার্থীরা ত্রান সামগ্রি নিয়ে বিএনপির মহাসচিবসহ প্রতিনিধিদলের যাত্রাপথে আক্রমন করতে দ্বিধা করেনি।  কারণ রাষ্ট্রের সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ব্যক্তির প্রটেকশন ও উস্কানিতে সন্ত্রাসীরা উৎসাহিত হচ্ছে। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, আওয়ামী লীগ সরকারের শীর্ষ ব্যক্তিদের নির্দেশেই এই ন্যাক্কারজনক হামলা চালানো হয়েছে। গুন্ডামীর এই নবসংস্করণ জনসমর্থন ছাড়া দুঃশাসন টিকিয়ে রাখারই ইংগিত বহন করে। নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়িবহরে হামলার ঘটনার পর রোববার রাজধানীতে রাজধানী ঢাকা, নাটোরসহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশ হামলা ও নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তারের নিন্দা জানান রিজভী।  যে অন্যায়ের বিরুদ্ধে বিএনপির নেতা-কর্মীরা কর্মসূচি পালন করেছে তারও সরকার উত্তর দিয়েছে গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে, অনাচারের মধ্য দিয়ে, উৎপীড়নের মধ্য দিয়ে। আমরা অবিলম্বে গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তির দাবি জানাচ্ছি। একই সঙ্গে রোববার মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল ও নেত্রকোনায় স্থানীয় বিএনপি ইফতার মাহফিল আওয়ামী লীগ ও তাদের অঙ্গসংগঠনের ক্যাডাররা হামলা চালিয়ে পন্ড করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব। রিজভী বলেন, গণবিচ্ছিন্ন হওয়ার কারণে এক অজানা ভয়ে আওয়ামী লীগের মনস্তাত্বিক আবহাওয়া বদলে গেছে। পতনের আশঙ্কায় তারা উদ্ভান্ত গুন্ডামীতে নেমে পড়েছে। সব কিছু হারিয়ে এখন তারা গুন্ডা রাজত্ব কায়েম করতে সর্বশক্তি নিয়োগ করেছে।  জনগনের সাথে আওয়ামী লীগের সম্পর্ক যেন সতীনের সংসারের মতো। আওয়ামী লীগ জনগনের ঘোর বিরোধী।দেশের মানুষের প্রতিই যেন তাদের প্রতিহিংসা। তিনি বলেন, নির্বাচন আসার আগেই গন্ডামী ও সন্ত্রাসকে যেভাবে প্রজনন করা হচ্ছে, তাতে আগামী নির্বাচন শেখ হাসিনার অধীনে হলে অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানে কী শোচনীয় বিপর্য্য় ঘটবে তা সহজেই অনুমেয়। সেই নির্বাচন হবে একতরফা, সন্ত্রাসকবলিত। আমরা দ্বিধাহীন কন্ঠে বলতে চাই, শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচনই সুষ্ঠু হবে না। বিএনপি তার(শেখ হাসিনা) অধীনে নির্বাচনে যাবে না। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুল ইসলাম বাবুল, আবদুস সালাম আজাদ, আবদুল আউয়াল খান, মুনির হোসেন, শহীদুল

  • খালেদার শাস্তি হলে নির্বাচন করতে পারবেন না, এটা ঠিক নয়

    বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেছেন, তাঁদের দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা হলেও তিনি নির্বাচন করতে পারবেন। দেশে আর কোনো দিন এক দলীয় নির্বাচন হবে না। বিএনপির আন্দোলন ও নির্বাচনের প্রস্তুতি একসঙ্গে চলবে। আজ শনিবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।   প্রসঙ্গত দুটি ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিচার চলছে।  বিচার আত্মপক্ষ সমর্থন পর্যায়ে আছে।   এমন প্রেক্ষাপটে প্রবীণ আইনজীবী মওদুদ আহমদ বলেন, খালেদা জিয়ার শাস্তি হলে নির্বাচন করতে পারবেন না, এটা ঠিক নয়। মিথ্যা মামলায় সাজা হলে খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তা আরও বাড়বে।   মওদুদ বলেন, ‘ধরে নিলাম মিথ্যা মামলায় একটি রায়ে তাঁর (খালেদা জিয়া) সাজা হয়ে গেল। ভালো কথা, আমরা আপিল ফাইল করব। আপিলটা হলো কনটিনিউশন অব দা প্রসিডিংস। অর্থাৎ যে বিচার হয়েছে, এটা হলো সে বিচারের ধারাবাহিকতা। তখন আমরা তাঁর জন্য ইনশাআল্লাহ জামিন নেব। বেগম খালেদা জিয়া সাজাপ্রাপ্ত হলেও নির্বাচনে সরাসরি অংশ গ্রহণ করতে পারবেন। ’  তিনি বলেন, সাজা হলেও খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশ নেওয়ার পাশাপাশি দল ও জোটের নেতৃত্বও দিতে পারবেন।   বিএনপির এই নেতা বলেন, নির্বাচন কমিশন বা নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারও বড় কথা নয়। গণতান্ত্রিক পরিবেশ বজায় রাখতে হবে। সবার জন্য সমান অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। তা শুধু নির্বাচনের এক মাসে আগে নয়, এখন থেকেই সবার জন্য সমান অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। সব নেতা-কর্মীর নামে থাকা মামলা প্রত্যাহার করে নিতে হবে। তাহলে বোঝা যাবে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের সম্ভাবনা আছে।   মওদুদ বলেন, বিএনপি শন্তিপূর্ণভাবে আলাপ আলোচনা, সমঝোতার মাধ্যমে রাজনৈতিক সংকট নিরসন করতে চায়। তা সম্ভব না হলে আন্দোলন ছাড়া কোনো বিকল্প থাকবে না। আগামী নির্বাচন এক দলীয় কোনো নির্বাচন বাংলাদেশের মাটিতে আর হবে না। সে ধরনের পরিকল্পনা কারও থাকলে তারা বাস্তবতা থেকে বিচ্ছিন্ন আছেন। গণতান্ত্রিক পরিবেশের জন্য বিএনপির আন্দোলনও চলবে, নির্বাচনের প্রস্তুতিও চলবে।   মওদদু আহমদ অভিযোগ করেন, বিডিআর বিদ্রোহ দমনে সরকার তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়নি। কারা এই সেনা কর্মকর্তাদের হত্যার পেছনে ছিল, কী উদ্দেশ্য ছিল এসব জনগণকে জানাতে হবে। কেউ এর দায় এড়াতে পারে না।

  • বামপন্থী মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান চাই ......... কমরেড মেনন

    বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে বামপন্থীদের অবদানের স্বীকৃতি প্রদান এবং জাতীয় মুক্তি সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির দ্বারা সংগঠিত মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্তিযোদ্দা তালিকায় অন্তর্ভূক্তিকরণের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের পূর্ণতা আনা প্রয়োজন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির উদ্যোগে আয়োজিত এক সেমিনারে বক্তারা এ কথা বলেন।আজ বিকাল ৩টায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট সেমিনার রুমে “স্বাধীন জনগণতান্ত্রিক পূর্ব বাংলা কর্মসূচি থেকে বাংলাদেশ জাতীয় মুক্তি সংগ্রাম সমন্বয় কমিটি” শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত আলোচনা সভায় ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি কমরেড রাশেদ খান মেননের সভাপতিত্বে আলোচনা করেন সিপিবির প্রেসিডিয়াম সদস্য কমরেড হায়দার আকবর খান রনো, জাতীয় পার্টির একাংশের মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, বিশিষ্ট সমাজ কর্মী শামসুল হুদা। সঞ্চালনা করেন ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড ফজলে হোসেন বাদশা এমপি। আলোচনা সভায় কমরেড মেনন বলেন, মুক্তিযুদ্ধে বামপন্থীরা কেবল অংশগ্রহনই করে নাই, সকল প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবলে করে মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে বিস্তীর্ণ অঞ্চল হানাদার বাহিনী মুক্ত রেখেছিল। তিনি বলেন তালিকাভুক্ত হওয়া কিংবা মুক্তিযোদ্ধা ভাতা পাওয়ার জন্য নয়, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে বামপন্থী মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান চাই। ইতিহাস তুলে ধরে মেনন আরো বলেন ফ্রিডম ফাইটারস্, জাতীয় মুক্তি সংগ্রাম সম্বয় কমিটি, মুজিব বাহিনী, ছাত্র ইউনিয়ন, ন্যাপ এং সিরাজ সিকদারের শ্রমিক আন্দোলন এই চারটি ধারার মুক্তিযুদ্ধে সক্রীয় অংশগ্রহণ ছিল। তাই মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এসব ধারায় কোন একটিকে বাদ দিয়ে ইতিহাস লিখলে তার পূর্ণতা পাবে না। আগামীদিনে মুক্তিযুদ্ধে বামপন্থীদের ভূমিকা নিয়ে সঠিক ইতিহাস তুলে ধরা এবং নতুন প্রজন্মকে জানানোর জন্য সকলকে উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানান।

  • গণতন্ত্র ও গণমাধ্যম একই হাতের এপিঠ-ওপিঠ: তথ্যমন্ত্রী ইনু

    গণতন্ত্র ও গণমাধ্যম একই হাতের এপিঠ-ওপিঠ বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। আজকে গণমাধ্যম এবং শেখ হাসিনার সরকার হাত ধরাধরি করে দেশের শত্রু জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা ও যুদ্ধাপরাধী চক্রের বিরুদ্ধে লড়াই চালাচ্ছে।শনিবার ঝালকাঠি প্রেসক্লাবের সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবের উদ্বোধনী বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় তিনি আরো বলেন, লড়াইয়ে আমরা অনেক দূর জিতেছি, ওরা কোণঠাসা হয়ে গেছে। তবে লড়াই এখনো চলছে। তিনি গণমাধ্যমকে বিশ্বস্ত, বস্তুনিষ্ঠ ও পবিত্র থাকার পাশাপাশি মিথ্যাচার, গুজব ও খন্ডিত তথ্য পরিবেশন থেকে বিরত থেকে গণতন্ত্রকে জঙ্গি সন্ত্রাসের উৎপাত থেকে রক্ষা করার আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটি অসাম্প্রদায়িক জঙ্গিবিরোধী, সাম্প্রদায়িকতা-বিরোধী এবং জাতীয় চার মূল নীতির ভিত্তিতে দেশকে এগিয়ে নিতে সক্ষম হচ্ছি।সকালে প্রেসক্লাব চত্বরে দুই মন্ত্রী বেলুন ও পতাকা উড়িয়ে উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। পরে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শোভাযাত্রায় সাংবাদিক, সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনসহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ অংশ নেন। পরে স্থানীয় শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা ও সম্মাননা স্মারক বিতরণ অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উৎস উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ও হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ।অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. মিজানুল হক চৌধুরী, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সরদার মো. শাহ আলম, পুলিশ সুপার মো. জোবায়েদুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক খান সাইফুল্লাহ পনির, পৌর মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুলতান হোসেন খান, প্রেস ক্লাবের সভাপতি কাজী খলিলুর রহমান, সাধারণ স¤পাদক মো. আক্কাস সিকদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। উৎসব উপলক্ষে সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী সৈয়দ আবদুল হাদির একক সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

E-mail : info@dpcnews24.com / dpcnews24@gmail.com

EDITOR & CEO : KAZI FARID AHMED (Genarel Secratry - DHAKA PRESS CLUB)

Search

Back to Top