• মহাস্থান উচ্চ বিদ্যালয়ে আন্ত: শ্রেণী ফুটবল টুূর্ণামেন্ট অনুষ্ঠিত

    লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলা করলে বিদ্যালয়,নিজের ও দেশের সুনাম অর্জন করা যায়                               ...................... সাজুবৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় মহাস্থান উচ্চ বিদ্যালয়ে আন্ত: শ্রেণী ফুটবল টুূর্ণামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়।উক্ত খেলার প্রধান অতিথি হিসাবে উদ্বোধন করেন মহাস্থান প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও অত্র বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য সাইদুর রহমান সাজু।  তিনি বলেন লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলা করলে বিদ্যালয়, নিজের ও দেশের সুনাম অর্জন করা যায়। এজন্য যাকিছু করা হয় তা মনোযোগের সহিত করতে হয়,  যাতে তার সুনাম চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এসময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী প্রধান শিক্ষক আমিনুল ইসলাম,আ: মজিদ, আহসান হাবিব, সুফি আলম, খাইরুল ইসলাম, মেহেরুল ইসলাম, সিরাতুল জান্নাত জুয়েল, আয়েশা সিদ্দিকা,  সোহেলী পরভীন কেটি, লিখন প্রমুখ। সমগ্র খেলা পরিচাণনা করেন শরীর চর্চা শিক্ষক শহিদুল ইসলাম। খেলায় শাপলাদল বাগান বিলাস দলকে ৩-০ গোলে ও ট্রাইবেকারে ডালিয়া দল মৌ সন্ধ্যা দলকে ৩-২. গোলে পরাজিত করে জয় লাভ করে।

  • ”ওয়ালটন ৪র্থ জাতীয় যুব মহিলা হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতা ২০১৭”

    বাংলাদেশ হ্যান্ডবল ফেডারেশনের সার্বিক ব্যব¯হাপনায় এবং ওয়ালটন এর পৃষ্ঠপোষকতায় আজ ০৭ আগষ্ট ২০১৭ শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ষ্টেডিয়ামে ”ওয়ালটন ৪র্থ জাতীয় যুব মহিলা হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতা ২০১৭” এর অনুষ্ঠিত খেলার ফলাফল নি¤েœ দেওয়া হলো। অনুষ্ঠিত খেলার ফলাফল সকাল ০৯.০০টায় অনুষ্ঠিত খেলায় গোপালগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংহা ১৬-০৮ গোলে রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সংহাকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে গোপালগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংহা ০৭-০৫ গোলে এগিয়ে ছিল।সকাল ১০.০০টায় অনুষ্ঠিত খেলায় নওগাঁ জেলা ক্রীড়া সংহা ১৯-০৬ গোলে নড়াইল জেলা ক্রীড়া সংহাকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে নওগাঁ জেলা ক্রীড়া সংহা ১২-০৩ গোলে এগিয়ে ছিল।সকাল ১১.০০টায় অনুষ্ঠিত খেলায় জামালপুর জেলা ক্রীড়া সংহা ১৭-১০ গোলে মাদারীপুর জেলা ক্রীড়া সংহাকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে জামালপুর জেলা ক্রীড়া সংহা ০৮-০৪ গোলে এগিয়ে ছিল।   ১ম সেমিফাইনাল দুপুর ০২:৩০টায় গোপালগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংহা বনাম জামালপুর জেলা ক্রীড়া সংহা । ২য় সেমিফাইনাল দুপুর ০৩:৩০টায় নওগাঁ জেলা ক্রীড়া সংহা বনাম পঞ্চগড় জেলা ক্রীড়া সংহা।

  • ”ওয়ালটন ৪র্থ জাতীয় যুব মহিলা হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতা ২০১৭”

    বাংলাদেশ হ্যান্ডবল ফেডারেশনের সার্বিক ব্যব¯হাপনায় এবং ওয়ালটন এর পৃষ্ঠপোষকতায় আজ ০৫ আগষ্ট ২০১৭ সকাল ১১.০০টায় শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ষ্টেডিয়ামে ”ওয়ালটন ৪র্থ জাতীয় যুব মহিলা হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতা ২০১৭” এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের মাননীয় হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন ঘোষনা করেন এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠানের অপারেটিভ ডাইরেক্টর (হেড অব স্পোর্টস এন্ড ওয়েলফেয়ার, ওয়ালটন গ্রুপ) জনাব ইকবাল বিন অনোয়ার ডন। এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হ্যান্ডবল ফেডারেশনের সম্মানিত সাধারন সম্পাদক আসাদুজ্জামান কোহিনুর, টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার আলী আজম, ফেডারেশনের সহ-সভাপতি ও টুর্নামেন্ট কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান জনাব মো: নুরুল ইসলাম, ফেডারেশনের কার্যনির্বাহী ও টুর্নামেন্ট কমিটির সম্পাদক জনাব মো: মকবুল হোসেন সহ ফেডারেশনের অনান্য কর্মকর্তাগন। উদ্বোধনী খেলা সহ অনান্য খেলার ফলাফল উদ্বোধনী খেলাটি নওগাঁ জেলা ক্রীড়া সং¯হা বনাম যশোর জেলা ক্রীড়া সং¯হার মধ্যে অনুষ্ঠিত হয়। খেলায় নওগাঁ জেলা ক্রীড়া সং¯হা ২৬-০৬ গোলে যশোর জেলা ক্রীড়া সং¯হা কে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে নওগাঁ জেলা ক্রীড়া সং¯হা ১১-০৪ গোলে এগিয়ে ছিল। আজ নিম্নবর্ণিত খেলাগুলো অনুষ্ঠিত হয় ঃসকাল ০৯.০০টায় অনুষ্ঠিত খেলায় জামালপুর জেলা ক্রীড়া সং¯হা ১৪-০২ গোলে কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া সং¯হাকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে জামালপুর জেলা ক্রীড়া সং¯হা ০৬-০১ গোলে এগিয়ে ছিল।সকাল ১০.০০টায় অনুষ্ঠিত খেলায় ঢাকা জেলা ক্রীড়া সং¯হা ১০-০১ গোলে বাগেরহাট জেলা ক্রীড়া সং¯হাকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে ঢাকা জেলা ক্রীড়া সং¯হা দল ০৬-০১ গোলে এগিয়ে ছিল।দুপুর ১২:০০টায় রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সং¯হা বনাম দিনাজপুর জেলা ক্রীড়া সং¯হা খেলায় ০৪-০৪ গোলে ড্র হয়। প্রথমার্ধে রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সং¯হা ০৪-০১ গোলে এগিয়ে ছিল।দুপুর ০২:৩০ টায় অনুষ্ঠিত খেলায় পঞ্চগড় জেলা ক্রীড়া সং¯হা ১৫-১৪ গোলে ঢাকা জেলা ক্রীড়া সং¯হাকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে পঞ্চগড় জেলা ক্রীড়া সং¯হা ০৪-০৭ গোলে পিছিয়ে ছিল।

  • কাবাডি লীগ-২০১৭ এর ফাইনালে দিয়া স্পোর্টিং ক্লাব মৌলভীবাজার চ্যাম্পিয়ন

    বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় আজ কাবাডি স্টেডিয়ামে ২য় বিভাগ কাবাডি লীগ-২০১৭ এর ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। দিয়া স্পোর্টিং ক্লাব, মৌলভীবাজার ২৩-১৭ পয়েন্টে আইডিয়াল ক্রীড়া চক্রকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে। ফাইনাল খেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ী ও বিজিত দলের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের সম্মানিত সভাপতি জনাব এ কে এম শহীদুল হক, বিপিএম, পিপিএম, ইন্সপেক্টর জেনারেল, বাংলাদেশ পুলিশ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের উপ-মহাসচিব জনাব আসাদুজ্জামান কোহিনুর, জনাব মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন পিপিএম, উপ-পুলিশ কমিশনার ( মতিঝিল বিভাগ), ডিএমপি. ঢাকা, জনাব মো: আবুল কালাম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বন্দর স্টিল মিলস লি:।অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক জনাব হাবিবুর রহমান, বিপিএম(বার),পিপিএম, অতিরিক্ত ডিআইজি(সংস্থাপন), বাংলাদেশ পুলিশ। ২য় বিভাগ কাবাডি লীগ ব্যাপক প্রচার করায় ক্রীড়া সাংবাদিক, ফটোসাংবাদিক ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানান এবং জাতীয় খেলা কাবাডিকে এগিয়ে নিতে সহযোগিতা কামনা করেন। লীগ কমিটির চেয়ারম্যান জনাব মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন, উপ-পুলিশ কমিশনার (ওয়ারী বিভাগ), ডিএমপি, অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন এবং ২য় বিভাগ কাবাডি লীগ আয়োজনে যারা সহযোগিতা করেছেন তাদের নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান । অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের যুগ্মসম্পাদক জনাব গাজী মো: মোজাম্মেল হক, এআইজি (ডেভেলপমেন্ট),বাংলাদেশ পুলিশসহ ফেডারেশনের অন্যান্য কর্মকর্তাগণ।

  • আগামী ২৮ জুলাই ২০১৭ ইং তারিখ অলিম্পিক ডে আয়োজন করা হবে

    আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির (আইওসি) প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে প্রতিবছর ২৩ শে জুন বিশ্বব্যাপী অলিম্পিক ডে উদযাপন করা হয়। আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির সদস্যভূক্ত সংস্থা হিসাবে বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন (বিওএ) প্রতি বছর ঢাকাসহ সকল বিভাগীয় শহরে সর্বস্তরের জনগণের অংশগ্রহণের মাধ্যমে অলিম্পিক ডে উদযাপন করে থাকে। এ বছর গত ২৩ জুন পবিত্র রমযান মাস ও পরবর্তীতে ঈদুল ফিতর হওয়ায় ২৩ জুন এর পরিবর্তে বিওএ কর্তৃক আইওসির অনুমোদনক্রমে আগামী ২৮ জুলাই ২০১৭ ইং তারিখ অলিম্পিক ডে আয়োজন করা হবে। 

  • বঙ্গমাতা ও বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট/১৭

    আড়াইহাজারে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ও বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্ণামেন্ট/১৭ এর দুটি ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্ণামেন্টের ফাইনালে সাতগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ১-০ গোলে নৈকাহন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।২০জুলাই বৃহম্পতিবার বিকাল ৩ টায় আড়াইহাজার শহীদ মঞ্জুর ষ্টেডিয়ামে সাতগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও নৈকাহন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় এর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলায় প্রথমার্ধের ১৪ মিনিটে গোল সীমায় হ্যান্ডবলের সুবাদে পেনাল্টি পায় সাতগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। পেনাল্টিতে ১০ নং জার্সিধারী খেলোয়ার মারিয়ার দেওয়া গোলে এগিয়ে খাকে সাতগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় । পরবর্তীতে নির্ধারিত সময়ে কোন দলই আর গোলের মুখ না দেখায় সাতগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ১-০ গোলে নৈকাহন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।অপর দিকে একই দিন বিকাল সাড়ে ৪টায় একই ষ্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্ণামেন্টের এর ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়।খেলায় আড়াইহাজার মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ২-০ গোলে শ্রীনিবাসদী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।আড়াইহাজার মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও শ্রীনিবাসদী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় এর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলায় প্রথমার্ধের ৯ মিনিটের সময় আড়াইহাজার মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়র হ্যান্ড বলের সুবাদে পেনাল্টি পায়। ৬নং জার্সিধারী খেলোয়াড় ইমনের দেওয়া গোলে মধ্য বিরতি পর্যন্ত ১-০ গোলে এগিয়ে থাকে আড়াইহাজার মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় । দ্বিতীয়ার্ধের ২৭ মিনিটে একই দলের ৯নং জার্সিধারী খেলোয়ার মেহেদী হাসান দলের পক্ষে দ্বিতীয় গোল করে দলকে ২-০ গোলে এগিয়ে নিয়ে যায়। বাকী সময় কোন দলই আর গোল করতে না পারায় আড়াইহাজার মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ২-০ গোলে শ্রীনিবাসদী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়।খেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন,নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু। ঐ সময় উপস্থিত ছিলেন,উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা সুরাইয়া খাস,উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রাফেজা খাতুন,উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুন্দর আলী মিয়া,ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু তালেব মোল্লা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মামুন অর রশিদ,সাধারন সম্পাদক আসলাম পাঠান,প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি ও আড়াইহাজার মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মবিনুল হক সাধারণ, সম্পাদক মোঃ লোকমান হোসেন, আড়াইহাজার প্রেসক্লাবের সভাপতি ও উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার যুগ্ম সম্পাদক হারাধন চন্দ্র দে, প্রমুখ।

  • সিরিজে সমতা আনলো জিম্বাবুয়ে

      ক্রেইগ আরভিনের নৈপুণ্যে সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে বৃষ্টি আইনে শ্রীলংকাকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে জিম্বাবুয়ে। এই জয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-২ সমতা আনলো জিম্বাবুয়ে। প্রথমে ব্যাট করে নিরোশান ডিকবেলার ১১৬ রানের কল্যাণে ৬ উইকেটে ৩০০ রান করে শ্রীলংকা। জবাবে ব্যাট করতে নেমে জিম্বাবুয়ে ২১ ওভারে ৩ উইকেটে ১৩৯ রান তোলার পর বৃষ্টি নামে। দীর্ঘক্ষণ বৃষ্টির কারণে খেলা বন্ধ থাকায় জয়ের জন্য বৃষ্টি আইনে ৩১ ওভারে ২১৯ রানের টার্গেট পায় জিম্বাবুয়ে। ১০ বল হাতে রেখেই নির্ধারিত লক্ষ্যে পৌঁছে যায় সফরকারীরা।হাম্বানটোটায় টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন শ্রীলংকার অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ। এবারও ব্যাটিং-এ উড়ন্ত সূচনা পায় শ্রীলংকা। তৃতীয় ওয়ানডেতে উদ্বোধণী জুটিতে ২২৯ রান করেছিলেন শ্রীলংকার দুই ওপেনার নিরোশান ডিকবেলা ও দানুষ্কা গুনাথিলাকা। এবারও জুটিতে ডাবল-সেঞ্চুরি যোগ করেন তারা। ২১২ বল মোকাবেলা করে ২০৯ রান দলকে উপহার দেন লংকান দুই ওপেনার। ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসে এই প্রথম পরপর দুই ম্যাচে দু’শতাধিক রান করলেন কোন জুটি।আগের ম্যাচে ১১৬ রান করা গুনাথিলাকাকে ব্যক্তিগত ৮৭ রানে বোল্ড করে জিম্বাবুয়েকে প্রথম সাফল্য এনে দেন স্বাগতিক দলের অকেশনাল অফ-স্পিনার ম্যালকম ওয়ালার। ১০১ বল মোকাবেলা করে ৭টি চারে নিজের ইনিংসটি সাজান গুনাথিলাকা।গুনাথিলাকা না পারলেও সেঞ্চুরির স্বাদ নিয়েছেন ডিকবেলা। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরির স্বাদ পান তিনি। আগের ম্যাচে ১০২ রান করা ডিকবেলা, এবার করেন ৮টি চারে ১১৮ বলে ১১৬ রান। শ্রীলংকার ক্রিকেট ইতিহাসে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে টানা দ্বিতীয় ম্যাচে সেঞ্চুরি করার রেকর্ড গড়েন ডিকবেলা।দুই ওপেনারের সেঞ্চুরির পরও, নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ৩০০ রানের বেশি করতে পারেনি শ্রীলংকা। পরের দিকের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে অধিনায়ক ম্যাথুজ ৪০ বলে ৪২ ও উপুল থারাঙ্গা ২২ রান করেন। জিম্বাবুয়ের ওয়ালার ও এমপফু ২টি করে উইকেট নেন।জয়ের জন্য ৩০১ রানের জবাবে খেলতে নেমে সলোমন মিরের ৪৩, টারিসাই মুসাকান্ডা ও হ্যামিল্টন মাসাকাদজার ২৮ রানের কল্যাণে ২১ ওভারে ৩ উইকেটে ১৩৯ রানে পৌঁছে যায় জিম্বাবুয়ে। এরপর বৃষ্টির কারণে প্রায় দু’ঘন্টা বন্ধ ছিলো খেলা। পরবর্তীতে ৩১ ওভারে ২১৯ রানের নতুন টার্গেট পায় জিম্বাবুয়ে। অর্থাৎ শেষ ৬০ বলে ৭ উইকেট হাতে নিয়ে ৮০ রান দরকার পড়ে সফরকারীদের।দলের নতুন টার্গেটের বাকী কাজটুকু সম্পন্ন করেছেন ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হওয়া ক্রেইগ আরভিন। এক প্রান্ত দিয়ে রানের চাকা সচল রেখে দল জয় নিশ্চিত করে ফেলেন তিনি। ৮টি চার ও ১টি ছক্কায় ৫৫ বলে অপরাজিত ৬৯ রান করেন আরভিন।আগামী ১০ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের পঞ্চম ও শেষ ওয়ানডে।সংক্ষিপ্ত স্কোর :শ্রীলংকা : ৩০০/৬, ৫০ ওভার (ডিকবেলা ১১৬, গুনাথিলাকা ৮৭, ওয়ালার ২/৪৪)।জিম্বাবুয়ে : ২১৯/৬, ২৯.২ ওভার (আরভিন ৬৯*, মির ৪৩, হাসারাঙ্গা ৩/৪০)।ফল : জিম্বাবুয়ে ৬ উইকেটে জয়ী।ম্যাচ সেরা : ক্রেইগ আরভিন (জিস্বাবুয়ে)।সিরিজ : পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-২ সমতা।

  • কেন তিনি সেরা, বুঝিয়ে যাচ্ছেন স্মিথ...

    টেস্টে ব্যাটিং শ্রেষ্ঠত্বের মুকুটটা নিয়ে এই মুহূর্তে লড়াইটা যাঁর সঙ্গে, সেই বিরাট কোহলিই প্রতিপক্ষ অধিনায়ক। বছর দুয়েক ধরে কোহলি-স্মিথেই সেরার লড়াইটা চলছে। তাতে আপাতত এগিয়ে স্মিথ, বর্তমানে টেস্টের সেরা ব্যাটসম্যান অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক। তবে কোহলির সঙ্গে এই লড়াইই কি তাতিয়ে রাখে তাঁকে? না হলে ভারতকে পেলেই এমন জ্বলে ওঠার কারণ কী! এ নিয়ে কোহলিদের বিপক্ষে টানা পাঁচটি টেস্টে যে সেঞ্চুরি করেছেন স্মিথ! সব মিলিয়ে ভারতের বিপক্ষে ৭ টেস্টে ৮৮.৮৩ গড়ে ১০৬৬ রান। যেখানে তাঁর ক্যারিয়ার গড় ৬০.৩৪! ৫১ টেস্টে রান ৪ হাজার ৮৮৮। পুনে টেস্টের তৃতীয় দিনে আজ দুর্দান্ত আরেকটি ইনিংস খেলেছেন স্মিথ। করেছেন সেঞ্চুরি, ২০২ বলের ইনিংসে ১১ চারে ১০৯ রান। তাতেই ভারতের সামনে জয়ের জন্য দুর্গম এক পাহাড় দাঁড় করিয়ে রেখেছে অস্ট্রেলিয়া। সিরিজের প্রথম টেস্টে জিততে হলে ভারতকে চতুর্থ ইনিংসে করতে হবে ৪৪১ রান। যেখানে টেস্ট ইতিহাসে ৪১৮ রানের বেশি তাড়া করে জেতার রেকর্ডই নেই। ভারত রেকর্ড গড়তে পারবেন কি না, কোহলি আবার দ্বিতীয় ইনিংসে দুর্দান্ত কিছু করে বসেন কি না, সে প্রশ্ন আপাতত তোলা থাকছে। তবে এখন পর্যন্ত এই টেস্ট স্মিথের। এর আগে ভারতের বিপক্ষে টানা যে চারটি টেস্টে সেঞ্চুরি করেছেন, চারটিই অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে। ২০১৪-১৫ মৌসুমে ভারতের অস্ট্রেলিয়া সফরে অ্যাডিলেড, ব্রিসবেন, মেলবোর্ন, সিডনি—চার টেস্টেই স্মিথ পেয়েছিলেন সেঞ্চুরি। তবে সেগুলোর চেয়েও একটু আলাদা হয়ে থাকবে এই টেস্টের সেঞ্চুরিটি। যার প্রথম কারণ, এই টেস্টটা ভারতের মাটিতে। যেখানে কী অস্ট্রেলিয়া, কী ভারত—সবার কাছেই পিচটাকে মনে হচ্ছে যেন মঙ্গল গ্রহের ভূপৃষ্ঠের মতো, যেখানে কোহলিরাও ব্যাট হাতে হিমশিম খেয়েছেন, সেখানেই স্মিথ কী দুর্দান্ত! দ্বিতীয় কারণটি এই, এর আগের চারটি সেঞ্চুরিই ছিল অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসে। এই প্রথম নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের বিপক্ষে সেঞ্চুরি পেলেন—টেস্টের তৃতীয় ইনিংসে, যখন অশ্বিন-জাদেজাদের স্পিন আরও ভয়ংকর হয়ে ওঠার কথা। অবশ্য আগের দিনই তিন-তিনবার জীবন পেয়েছেন স্মিথ। তবে সেটি কাজে লাগিয়ে আবার দলের প্রয়োজনে ইনিংসটাকে গড়ে নেওয়াই বা কম কী! অন্য পাশে সঙ্গী বদল হয়েছে বারবার, সবচেয়ে বড় জুটি হয়েছে পঞ্চম উইকেটে মিচেল মার্শের সঙ্গে (৫৬)। এর বাইরে চতুর্থ উইকেটে রেনশর সঙ্গে ৫২ রানের জুটি, স্টার্কের সঙ্গে ৪২, হ্যান্ডসকম্বের সঙ্গে ৩৮, ওয়েডের সঙ্গে ৩৫....সঙ্গী বদল হলেও এতটুকু দমেনি স্মিথের ব্যাট। হয়তো নিজেই বুঝতে পারছিলেন, প্রথম ইনিংসে বোলাররা দুর্দান্ত বোলিং করে যে লিড এনে দিয়েছেন, সেটিকে পাহাড় চড়াতে হলে তাঁকেই কিছু করতে হবে। সেটি দলের অধিনায়ক হিসেবে যেমন, দলের সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবেও।  শুধু দল নয়, স্মিথ খেললেন আসলে বিশ্বসেরা ব্যাটসম্যানের মতো করেই। নিজের সার্থকতা প্রমাণ করে।

  • ও’কিফ মাটিতে নামালেন ভারতকে

    শেন ওয়ার্নের কথাটাই তাহলে সত্যি হলো! প্রথম সেশনের বিরতি চলছিল তখন। ভারতের সামনে জয়ের জন্য ৪৪১ রানের প্রায় অসম্ভব এক লক্ষ্য দিয়ে রেখেছে অস্ট্রেলিয়া। চতুর্থ ইনিংসে রান তাড়া করে জয়ের বিশ্বরেকর্ডই যেখানে ৪১৮! বিরতির সময় স্টার স্পোর্টসে বিশ্লেষণ করতে থাকা সুনীল গাভাস্কার তখন বলছিলেন, ‘জয় তো সম্ভব নয়। ভারত চতুর্থ ইনিংসে অন্তত ৩০০ বা ৩৫০ রান করতে পারলেও সেটি হবে বড় অর্জন।’ জবাবে আরেক বিশ্লেষক শেন ওয়ার্ন দুষ্টুমি করেই ভারতীয় কিংবদন্তিকে বললেন, ‘বেস্ট অব লাক, সানি!’ ইঙ্গিতটা পরিষ্কার, ভারত চতুর্থ ইনিংসে ৩০০-ও করতে পারবে না। কিংবদন্তি অস্ট্রেলিয়ান লেগ স্পিনারের কথাটাই তো সত্যি হলো। সত্যি করছেন আরেক অস্ট্রেলিয়ান স্পিনারই—স্টিভ ও’কিফ! সেটিও এমন কীর্তি গড়ে, যা করতে পারলে শেন ওয়ার্নও গর্বিত হতেন! প্রথম ইনিংসে ৩৫ রানে ৬ উইকেট নিয়ে ভারতের বিখ্যাত ব্যাটিং লাইন-আপও ধসিয়ে দিয়েছিলেন ও’কিফ। কাকতালীয়ভাবে দ্বিতীয় ইনিংসেও ঠিক ৩৫ রানেই আরও ৬ উইকেট। ৭০ রানে ১২ উইকেট ভারতের মাটিতে যেকোনো বিদেশি স্পিনারের রেকর্ড বোলিং। এর আগে ২০০৮ সালে নাগপুরে ম্যাচে ৩৫৮ রান দিয়ে ১২ উইকেট পেয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ান অফ স্পিনার জেসন ক্রেজা। দুই ইনিংসে ও’কিফের স্পিন ঘূর্ণিই মাটিতে নামাল ভারতকে। প্রথম ইনিংসে ১০৫ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে অলআউট হলো ১০৭ রানে। সিরিজের প্রথম টেস্টটা তাতে হেরে গেল ৩৩৩ রানে। থামল বিরাট কোহলিদের টানা ১৯ টেস্টের অপরাজিত পথচলা। দিনের শুরুতে অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের দুর্দান্ত সেঞ্চুরির সৌজন্যে অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় ইনিংসে করেছে ২৮৫ রান। সঙ্গে প্রথম ইনিংসে পাওয়া ১৫৫ রানের লিড তো ছিলই। কিন্তু ৪৪১ রানের লক্ষ্যে নেমে যেন দিশেহারা ভারত। দুই ওপেনার মুরালি বিজয় ও লোকেশ রাহুল দুজনই আউট হয়েছেন ১৬ রানের মধ্যে, দুজনই এলবিডব্লু । কিন্তু এর চেয়েও যেটি চোখে লেগেছে তা হলো, দুজনই অহেতুক দুটি রিভিউ নিয়ে সেগুলো নষ্ট করেছেন। এরপর এল ভারতের সবচেয়ে বড় হতাশা! স্টিভেন স্মিথের সেঞ্চুরির পর যাঁর ব্যাটের দিকে তাকিয়ে ছিল ভারত, সেই বিরাট কোহলিও আউট! সেটিও বড্ড দৃষ্টিকটু। ও’কিফের বল স্টাম্পের বাইরে যাবে ভেবে ছেড়ে দিয়েছিলেন, কিন্তু সেটি উল্টো ঘুরে এসে নাড়িয়ে দিল কোহলির অফ স্টাম্প! ৪৭ রানেই ৩ উইকেট নেই ভারতের। এরপর ভারতের মিডল অর্ডারের পুরোটা একাই ধসিয়ে দিয়েছেন ও’কিফ। রাহানে-অশ্বিন-ঋদ্ধিমান-পূজারা সবাইকে ফিরিয়ে দিয়েছেন। ভারত তখন ৭ উইকেট হারিয়ে ১০০! তখন দুটি ‘প্রশ্ন’ ঘুরছিল—ও’কিফ ভারতের মাটিতে যেকোনো বিদেশি বোলারের মধ্যে রেকর্ডই ভাঙতে পারবেন (ইয়ান বোথামের, ম্যাচে ১০৬ রানে ১৩ উইকেট)? আর ভারত প্রথম ইনিংসের ১০৫ রান পেরোতে পারবে? প্রথমটি হয়নি। তাতে সঙ্গী স্পিনার নাথান লায়নের ওপর একটু ‘রাগ’ করতেই পারেন ও’কিফ। শুরুতে লোকেশ রাহুলকে ফিরিয়েছিলেন লায়ন, শেষ দিকে এসে একে একে ফিরিয়ে দিলেন ভারতের শেষ তিন ব্যাটসম্যান জাদেজা, জয়ন্ত ও ইশান্ত শর্মাকে! তবে ভারত এর মধ্যেই প্রথম ইনিংসের সংগ্রহটাকে ছাড়িয়ে গেছে—দ্বিতীয় ইনিংসে দু-ই রান বেশি করেছে। তাতে কী! লজ্জার পরাজয় তো তার অনেক আগেই লেখা হয়ে গেছে। স্টার স্পোর্টস।

  • ক্রিকইনফোর বর্ষসেরায় ছয় বাংলাদেশি

    আইসিসির বর্ষসেরা পুরস্কারের পাশাপাশি এই পুরস্কার নিয়েও সবার আগ্রহ থাকে। ক্রিকইনফোর বর্ষসেরা কারা হচ্ছে, তা জানা যাবে আজ রাতে। তবে এর আগে জেনে নিতে পারেন মনোনয়ন তালিকা। যেখানে আছে বাংলাদেশের দাপট। গতবার এই পুরস্কারের বর্ষসেরা উদীয়মান বিভাগে জিতে​ছিলেন মোস্তাফিজুর রহমান। এবারও এই বিভাগে ভালো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন মেহেদী মিরাজ। মিরাজ মনোনয়ন পেয়েছেন বর্ষসেরা টেস্ট বোলিং পারফরম্যান্সেও। মিরাজ ছাড়াও আরও পাঁচ বাংলাদেশি ক্রিকেটার আছেন মনোনয়ন তালিকায়—তামিম ইকবাল, মাশরাফি বিন মুর্তজা, মোস্তাফিজুর রহমান, মাহমুদউল্লাহ ও সাব্বির রহমান।  টেস্ট ব্যাটিং পারফরম্যান্সে আছেন তামিম ইকবাল। ওই ঢাকা টেস্টেই অনবদ্য ১০৪ রানের ইনিংসটা তামিম ইকবালকে সুযোগ করে দিয়েছে এ তালিকায় আসার। তবে ব্রেন্ডন ম্যাককালামের দ্রুততম সেঞ্চুরি কিংবা বেন স্টোকসের দ্রুততম আড়াই শ রানকে সম্ভবত পেরোতে পারছেন না তামিম। তালিকায় আরও আছে পাল্লেকেলেতে কুশল মেন্ডিসের সেই অবিশ্বাস্য ১৭৬ আর মুম্বাইয়ে বিরাট কোহলির চোখজুড়ানো ২৩৫–ও।  গতবার সেরা অধিনায়কদের ছোট তালিকায় থাকতে পারলেও এবার আর সেটা করতে পারেননি মাশরাফি বিন মুর্তজা। তবে নিজের আসল কাজে ওয়ানডের সেরা বোলিং পারফরম্যান্সে জায়গা করে নিয়েছেন। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে মাত্র ২৩৮ রানের লক্ষ্যটাকেই কঠিন বানিয়ে দিয়েছেন ২৯ রানে ৪ উইকেট নিয়ে। ওই সিরিজেই প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশের জয় কেড়ে নেওয়া স্পেলে এই তালিকায় চলে এসেছেন জ্যাক বলও। তবে সুনীল নারাইন, ইমরান তাহির কিংবা জন হেস্টিংসের পারফরম্যান্সগুলোই বেশি এগিয়ে আছে।  টি-টোয়েন্টি বোলিংয়েও আছেন বাংলাদেশের প্রতিনিধি। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৫ উইকেট পাওয়া মোস্তাফিজের সঙ্গে বিশ্বকাপেই ৫ উইকেট পাওয়া আরেক বোলার জেমস ফকনারের লড়াই হবে। তবে ভারতের বিপক্ষে মিচেল স্যান্টনারের ৪ উইকেট কিংবা এশিয়া কাপে ভারতের বিপক্ষে মোহাম্মদ আমিরের স্পেলেরই সম্ভাবনা বেশি এবারের বিজয়ী হওয়ার। ম্যাচের গুরুত্ব বিবেচনায়। ক্ষুদ্রতম সংস্করণের ব্যাটিংয়ে আছেন বাংলাদেশের দুজন। এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সাব্বির রহমানের দুর্দান্ত সেই ৮০ রানের ইনিংস কিংবা পাকিস্তানের বিপক্ষে মাহমুদউল্লাহর মহাগুরুত্বপূর্ণ ২২ রান জায়গা করে নিয়েছে এখানে। আছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কোহলির ৮২ রান, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের ১৪৫ রানও।  এশিয়া কাপে আমিরের ওই স্পেলের উল্টো দিকে কোহলির ৪৯ রান কিংবা ভারতকে হারিয়ে দেওয়া ব্রেন্ডন সিমন্সের ৮২* রানের ইনিংসগুলোও কম ফেবারিট নয়। তবে বিশ্বকাপ ফাইনালে মারলন স্যামুয়েলসের ৮৫* কিংবা কার্লোস ব্রাফেটের চার বলে চার ছক্কা মারা ৩৪ রানকে টপকানো খুবই কঠিন হবে!  সব কৌতূহলই মিটবে আজ রাত সাড়ে নয়টায়। তখনই জানা যাবে বাংলাদেশের কেউ জিতলেন কি না। গতবারের মতো এবারও উদীয়মান বিভাগে রাখতে হবে বিশেষ নজর।

  • ৪৪১ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে ভারত

    পুনে টেস্টে ভারতকে ৪৪১ রানের টার্গেট দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া । দ্বিতীয় ইনিংসে অধিনায়ক স্মিথের অপরাজিত ১০৯ রানের ওপর ভিত্তি করে ২৮৫ রানে অলআউট হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া । আগের ইনিংসে অস্ট্রেলিয়া ১৫৫ রানে এগিয়ে থাকায় ভারতের টার্গেট দাঁড়ায় ৪৪১ । এটি অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক ক্যারিয়ারের ১৮তম টেস্ট সেঞ্চুরি। আর ভারতের মাটিতে প্রথম। কিন্তু শুধু এ কারণে নয়, এ সেঞ্চুরিটাকে স্মিথ হয়তো আলাদা করে রাখবেন অন্য একটা কারণেও। যে উইকেটে প্রথম দিনের প্রথম ওভার থেকে বল বিশাল বাঁক নিচ্ছে, যেখানে ব্যাট করা কঠিন ঠেকছে স্বাগতিক ভারতের ব্যাটসম্যানদের কাছেও, সেখানেই কী দারুণ খেলেছেন স্মিথ। ৫৯ রানে অপরাজিত থেকে দিন শুরু করেছিলেন স্মিথ। গতকাল ২৩, ২৯ ও ৩৭ রানে তিনবার জীবন পান তিনি। আজ সকাল থেকে অবশ্য বেশ স্বচ্ছন্দে খেলছিলেন স্মিথ। ভারতের বিপক্ষে এটি তার টানা পঞ্চম সেঞ্চুরি। ৩১ রানের দুটি ইনিংস এসেছে ম্যাট রেনশ ও মিচেল মার্শের ব্যাট থেকে। ৩০ রান করেছেন মিচেল স্টার্ক। ভারতের পক্ষে চারটি উইকেট নিয়েছেন রবীচন্দ্রন অশ্বিন।

  • নতুন কাবাডি রেফারী কোর্স শুরু

    বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় আগামী ২৫ ফেব্র“য়ারি হতে ০১ মার্চ ২০১৭ পর্যন্ত নতুন কাবাডি রেফারি কোর্স কাবাডি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত কোর্স প্রতিদিন বিকেল ৩:০০-৭:৩০ ঘটিকায় পর্যন্ত চলবে। প্রাক্তণ জাতীয় কাবাডি খেলোয়াড় এবং ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন স্কুলের ক্রীড়া শিক্ষক ও স্কাউট এর শিক্ষকগন  উক্ত কোর্সে অংশগ্রহণ করবে। আগামী ২৫ ফেব্র“য়ারি ২০১৭ তারিখ বিকেল ৩:০০ ঘটিকায় কোর্সের শুভ উদ্বোধন করবেন জনাব গাজী মো: মোজাম্মেল হক এআইজি ডেভেলপমেন্ট এবং যুগ্ম-সম্পাদক বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের সহ-সভাপতি এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব আমির হোসেন পাটোয়ারী।

  • জুনিয়র ডেভিস কাপ এশিয়া/ওশানিয়া প্রি-কোয়ালিফাইং রাউন্ড ২০১৭

    আগামী ২০-২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ পর্যন্ত ভারতের নতুন দিল্লীতে ‘জুনিয়র ডেভিস কাপ এশিয়া/ওশানিয়া প্রি-কোয়ালিফাইং রাউন্ড ২০১৭’ এর খেলা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ, ভূটান, নেপাল, ইরান, ইরাক, কাজাখস্তান, কিরঘিজস্তান, লাওস, লেবানন, পাকিস্তান, সৌদি আরব, শ্রীলংকা, সিরিয়া, তুর্কমিনিস্তান, ভিয়েতনাম ও ইয়েমেন অংশগ্রহন করবে। প্রতিযোগিতায় ০৪ (চার) সদস্য বিশিষ্ট বাংলাদেশ দল অংশগ্রহন করবে। দলের নন-প্লেইং ক্যাপ্টেন হিসেবে অত্র ফেডারেশনের চীফ কোচ জনাব মোজাহিদুল হক দায়িত্ব পালন করবেন। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনকারী বাংলাদশে দলের খেলোয়াড়রা হচ্ছেন : (১) মো: জুয়েল রানা, (২) মোহাম্মদ ইশতিয়াক এবং (৩) মো: স্বাধীন হোসেন। আগামীকাল বাংলাদেশ দল পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করবে।

  • বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সপ্তাহ সম্পন্ন

    রাংগুনিয়া উপজেলাধীন ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কুলকুরমাই হরদয়া কিন্ডার গার্টেন স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সপ্তাহ গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সারা দিনব্যাপী নানা অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে স্কুলের প্রঙ্গেনে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের প্রথম পর্ব প্রতিযোগিতার প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উদ্বোধন করেন সাবেক জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তরুণী সেন বড়–য়া। স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মাহাবুর ছাফার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী পর্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ ইউছুফ। বিকাল ৩ টায় প্রতিযোগিতার ২য় পর্ব পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত সদস্য কামরুল ইসলাম চৌধুরী। স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও রাংগুনিয়া পৌরসভার সাবেক মেয়র আলহাজ খলিলুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন রাংগুনিয়া মজুমদার খীল উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক হাজী বদি আহমদ চৌধুরী, রাংগুনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সাবেক ভিপি মোস্তফা বদিউর খায়ের চৌধুরী লিটন। সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, স্কুলের সিনিয়র শিক্ষক মোঃ রাসেল খান, মোঃ ইয়াকুব রানা প্রমূখ। সভায় বক্তারা বলেন, শিশুদের সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়তে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার চর্চায় মনোনিবেশ করতে হবে। আজকের শিশুরা আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। তাই তাদের গড়ে তুলতে আমাদেরই দায়িত্ব নিতে হবে। আলোচনা সভা শেষে অতিথিবৃন্দ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরন করেন।

  • ঢাকা সাইক্লিং স্পোর্টিং ক্লাবের উদ্বেগে শীতকালীন উন্মুক্ত সাইক্লিং প্রতিযোগিতা ২০১৭” অনুষ্ঠিত

    ঢাকা সাইক্লিং স্পোর্টিং ক্লাবের উদ্বেগে আজ শুক্রবার ৩ ফেব্রুয়ারী বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম চত্বরে শীতকালীন উন্মুক্ত সাইক্লিং প্রতিযোগিতা ২০১৭” অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিযোগিতা  সার্ভিসেস দল, বাংলাদেশ সেবাবাহিনী, বিজেএমসি , বাংলাদেশ জেল পুলিশ, বিজিবি সহ বিভিন্ন ক্লাব হতে ১৫০ জন পুরুষ ও মহিলা সাইক্লিস্ট অংশগ্রহন করেন ৩টি ইভেন্টে।প্রতিযোগিতায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরুষ্কার বিতরন করেন বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েসনের সহ-সভাপতি এবং ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক জনাব হারুনুর রশিদ। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন ইসমে আরা হামিদ ও নাসিমা অহম্মেদ। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন  ঢাকা সাইক্লিং স্পোর্টিং ক্লাবের সভাপতি জোবেরা রহমান লিনু , সহ- সভাপতি ইকরামউজ্জমান, সেখ বাহা উদ্দিন রিটু, পারভেজ হাসান  এবং ক্লাবের সাধারন সম্পাদক লাজুল করিম কস্তুরী সহ অনান্য কর্মকর্তা বৃন্দ।

E-mail : info@dpcnews24.com / dpcnews24@gmail.com

EDITOR & CEO : KAZI FARID AHMED (Genarel Secratry - DHAKA PRESS CLUB)

Search

Back to Top