দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কোলমাইনিং কোম্পানী শ্রমিক ও কর্মচারী ইউনিয়ন শ্রম আপিল ট্রাইবুন্যাল থেকে তাদের পক্ষে নির্বাচন করা ও অফিস খুলে দেয়ার রায়ে আদেশ প্রদান করেন। উল্লেখ্য যে সুন্দর এবং গ্রহন যোগ্য নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন। ২০১৫ সালের দাখিল করা সর্বশেষ রিটার্ন অনুযায়ী ট্রেড ইউনিয়নের সদস্য সংখা ৭০ জন এবং এই শ্রম আদালত রাজশাহীতে শ্রম আপিল মামলা ১২৮/১৪ আনায়ন করে গঠন তন্ত্রে সংশোধনী আনায়ন এর অনুমোদন পায় কর্মচারী শ্রমিক ইউনিয়ন। আপিল মামলাটিতে বিবাদীপক্ষরা রায় পাওয়ার পর শ্রম দপ্তর কতৃক রাজশাহী রায়টি মেনে নিতে না পেরে শ্রম আপিল ট্রাইবুন্যাল ঢাকায় ঘোষিত রায়ের বিরুদ্ধে আবার আপিল মামলা করেন। গত ৫/০৩/২০১৭ইং তারিখে নির্বাচনটি করার জন্য বড়পুকুরিয়া কোলমাইনিং কোম্পানী লিমিটেড শ্রমিক ও কর্মচারী ইউনিয়ন এর সভাপতি মো. আবুল কাশেম শিকদার,সাধারন সম্পাদক মো. মহিউদ্দিন আহম্মেদ এবং সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (বিসি.এম.সি এল)দিনাজপুর ও রেজিষ্টার অব ট্রেড ইউনিয়ন,শ্রম অধিদপ্তর,রাজশাহী বিভাগকে সংশোধিত গঠন তন্ত্র ২০১৫সালের দাখিলি রিটার্ন,সদস্য তালিকা শ্রম আপিল মামলা ১২৮/১৪এর রায়,২০১৩ সালে নির্বাচনী ফাইল পত্র প্রদান করেন। ১৫/০২/২০১৭ইং তারিখে শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন এর সাধারন সভায় সদস্য গনের আলোচনা সভায় সিদ্ধান্ত হয় ইউনিয়নের সাধারন নির্বাচন সুষ্ট ভাবে ৪৫ দিনের মধ্যে করার জন্য ৩ সদস্য আহবায়ক কমিটি করে দেন। ২৭/০২/২০১৭ইং তারিখে বড়পুকুরিয়া কোলমাইনিং কোম্পানী লিমিটেড শ্রমিক ও কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মো. আবুল কাশেম শিকদার ও সাধারন সম্পাদক মো. মহিউদ্দিন আহম্মেদ সাক্ষরিত সদয় অবগতির জন্য বিভিন্ন দপ্তরে অনুলিপি প্রেরন করেন। কিন্তু রেজিঃ নং ১৯৫৬ সংগঠনে মো. দুলাল মিয়া,মেকানিক্যাল ফোরম্যান ও মো. জাহাঙ্গীর আলম, কারিগরি কাজের ফোরম্যান গংরা ভোট করতে না দিয়ে তারা ৯/০৪/২০১৭ইং তারিখে ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি এডহক কমিটি গঠন করেন। বড়পুকুরিয়া কোলমাইনিং কোম্পানী লিমিটেড শ্রমিক ও কর্মচারী ইউনিয়ন এর মধ্যে নির্বাচন এবং সংগঠন নিয়ে নিজেদের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি নিরোষনের কারনে গত ৯/৮/২০১৭ইং তারিখে খনিতে এক সমোঝতা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে উভয় পক্ষের মধ্যে ৫ সদস্য কমিটি গঠন করা হয়। সেখানে রাজনৈতিকদলের নেতৃবৃন্দ এবং খনির বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। মামলাটি নিঃস্পত্তি হওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে আহবায়ক কমিটি সাধারন সভা ডেকে নির্বাচনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করবেন। আপিল বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০১৬ এর ২১৭ ধারা অনুসারে সম্পাদিত হয়েছে, সেই অনুসারে বিচার প্রকৃয়া অনুষ্ঠিত হয়। গত ৩১/৫/২০১৪ইং তারিখে নির্দেশ প্রদান করা হয় যা বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬ এর ১৮৮(২)১৮৮(৪)ও ২১৩ধারার অধিনে শ্রম আপিল নং ১২৮ এর শ্রম আদালত রাজশাহী এর বিজ্ঞ চেয়াম্যানের অনুমোদন শুনানী শুরু হয় ১০/১০/২০১৭ইং এবং বিচার কার্য শুরু হয় ৬/১২/২০১৭ইং তারিখে। শ্রম আপিল ট্রাইবুন্যাল এর চেয়ারম্যান ঢাকা আপিল নিঃস্পত্তি করে বিবাদীর পক্ষে রায় প্রদান করেন। এখানে শ্রম আপিল নং ২০১৪ এর ১২৮ এর শ্রম আদালত রাজশাহী চেয়ারম্যানের দেয়া রায়ও তাদের পক্ষে প্রদান করেন। রায়ের অনুলিপি খনি কতৃপক্ষসহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরন করেন। কিন্তু কয়লা খনি কতৃপক্ষ এখন পর্যন্ত বড়পুকুরিয়া শ্রমিক ও কর্মচারী ইউনিয়নের অফিসটি খুলে দেয় নি। এমনকি এডহক কমিটি নির্বাচন করার কোন প্রস্তুতি গ্রহন করছেন না। যা শ্রম আইনের বিধি লংঘন করছেন।

Author

ID NO : মোঃ আফজাল হোসেন, ফুলবাড়ি, দিনাজপুর

Share Button

Comment Following News

E-mail : info@dpcnews24.com / dpcnews24@gmail.com

EDITOR & CEO : KAZI FARID AHMED (Genarel Secratry - DHAKA PRESS CLUB)

Search

Back to Top