বাংলাদেশ হাই কমিশন নতুন দিল্লী শনিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৬ মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের মাধ্যমে নয়াদিল্লীস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনে উদযাপিত হলো বিজয় দিবস নয়াদিল্লি, ১৭ ডিসেম্বরঃ হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাংগালী,যার কালজয়ী নেতৃত্বেপাকিস্তানের সাথে দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ীযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত হয়েছিল বিজয়ের মাহেন্দ্রক্ষন,জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং মুক্তিযুদ্ধের সকল বীর শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের মাধ্যমে শুক্রবার নয়াদিল্লীস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনে উদযাপিত হলো বিজয়ের ৪৫ তম বার্ষিকী -বিজয় দিবস ২০১৬। শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ৮.৩০টায় বাংলাদেশ হাইকমিশন প্রাঙ্গনে জাতীয় সঙ্গীতের সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে মহান বিজয় দিবস উদযাপন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন ভারপ্রাপ্ত হাই কমিশনার সালাহউদ্দিন নোমান চৌধুরী। এরপর হাই কমিশনের মৈত্রী হলে দিবসটি উপলক্ষ্যে মহামান্য রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, এমপি ও মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার আলম, এমপি কর্তৃক প্রদত্ত বাণীসমূহ পাঠ এবং সবশেষে ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট কালো রাত্রিতে নিহত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যদের এবং মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া মাহফিলের মাধ্যমে সমাপ্ত হয় প্রভাতের আয়োজন। সন্ধ্যায় হাই কমিশনের মৈত্রী হলে ঢাকার সরকারি সঙ্গীত মহাবিদ্যালয় থেকে আগত ছাত্র ও শিক্ষকদের পরিবেশনায় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে যোগদান করেন ভারতীয় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সংগঠন ও সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলের প্রতিনিধিবৃন্দ, ভারতে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক, সাংবাদিক সহ বিপুল সংখ্যক অতিথি। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপণা ও ত্রান মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম। মোশাররফ হোসেন ও মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরীমায়া সাংস্কৃতিক পরিবেশনার প্রাক্কালে তাদের বক্তব্যে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জল ইতিহাসের স্মৃতিচারন করেন এবং মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে পাকিস্তানী সেনাদের বিপক্ষে মুক্তিবাহিনীর অসীম সাহসিকতার গল্প ও নিজেদের অভিজ্ঞতা আমন্ত্রিত অতিথিদের সামনে তুলে ধরেন। স্বাগত বক্তব্যে ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার সালাহউদ্দিন নোমান চৌধুরী স্মরন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সুমহান ত্যাগের কথা যারা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর নৃশংশতার বিরুদ্ধে রুখে দাড়িয়েছিল। তিনি তার বক্তব্যে সেই দুঃসময়ে ভারত সরকার এবং তার জনগণের সামরিক, অর্থনৈতিক, কূটনৈতিক এবং মানসিক সমর্থনের কথা কৃতজ্ঞ চিত্তে স্মরন করেন। এরপর সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় শিল্পীবৃন্দ ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় পর্যন্ত বাংলাদেশের গৌরবোজ্জল ইতিহাস ও ত্যাগের ধারাবাহিক ঘটনা প্রবাহ গানের মাধ্যমে আমন্ত্রিত অতিথিদের সামনে উপস্থাপন করেন যা সমবেত সকলের প্রশংসা অর্জন করে। এছাড়া, এদিন হাই কমিশনের কর্মকর্তাগন ভারত ফাউন্ডেশন ও নেহেরু মেমোরিয়াল মিউজিয়াম ও লাইব্রেরী কর্তৃক যৌথভাবে আয়োজিত একটি কর্মশালায়ও অংশগ্রহণ করেন।মাননীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপণা ও ত্রান মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম এ কর্মশালায় প্রধান অতিথি এবং ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভি কে সিং বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন। কর্মশালায় ভারত ও বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাগণ যুদ্ধকালীন সময়ে বিভিন্ন গুরত্বপূর্ণ অভিযান সম্পর্কে তাদের ব্যক্তিগত স্মৃতিচারন করেন। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে এ আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন স্বাধীনতা পদক প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা, ইতিহাসবিদ এবং লেখক লেঃ কর্ণেল (অবঃ)কাজী সাজ্জাদ আলী জহির বীর প্রতীক।

Author

ID NO :

Share Button

Comment Following News

E-mail : info@dpcnews24.com / dpcnews24@gmail.com

EDITOR & CEO : KAZI FARID AHMED (Genarel Secratry - DHAKA PRESS CLUB)

Search

Back to Top