তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী। আজ সোমবার রাজ্যসভার চেয়ারম্যানের কাছে তিনি ইস্তফাপত্র দেন। শারীরিক অসুস্থতার কারণে মিঠুন চক্রবর্তী ইস্তফা দিয়েছেন বলে তৃণমূল কংগ্রেস এক বিবৃতিতে জানিয়েছে। যদিও এই বিষয়ে মিঠুনের পক্ষ থেকে কোনো মন্তব্য জানা যায়নি। তৃণমূল কংগ্রেসের প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছ থেকে সবুজ সংকেত পাওয়ার পরই তিনি ইস্তফা দেন বলে জানা গেছে। এদিকে মিঠুনের এই ইস্তাফাকে ঘিরে এরই মধ্যেই নানা জল্পনা শুরু হয়েছে ভারতের রাজনৈতিকমহলে। পশ্চিমবঙ্গের বৃহত্তম অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারি সারদাকাণ্ডে নাম জড়ানোর পর থেকেই তৃণমূলের সঙ্গে মিঠুনের দূরত্ব বাড়তে থাকে। ওই কেলেঙ্কারিতে নাম জড়ানোর পর থেকেই অনেকটা মুষড়ে পড়েন মিঠুন। এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরের (ইডি) কাছেও হাজিরা দিতে হয় তাঁকে। ওই অর্থলগ্নি সংস্থার বিভিন্ন অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে যে পারিশ্রমিকের অর্থ তিনি নিয়েছিলেন সেটাও ইডিকে ফেরত দিয়ে দেন মিঠুন। সেই সঙ্গে তৃণমূলের অনুষ্ঠান কর্মসূচি থেকে দূরে থাকতে শুরু করেন তিনি। এমনকি রাজ্যসভাতেই সেইভাবে উপস্থিত হতে দেখা যায়নি মিঠুন চক্রবর্তীকে। হাতে গোনা কয়েকদিন তিনি রাজ্যসভায় উপস্থিত ছিলেন। জানা যায়, এর আগে একাধিকবার রাজ্যসভায় চিঠি পাঠিয়ে ছুটি চেয়ে নেন মিঠুন। সম্প্রতি শারীরিকভাবে মিঠুন চক্রবর্তী অসুস্থ ছিলেন বলে জানা যায়। কয়েকদিন আগে তিনি হাসপাতালে ভর্তিও হয়েছিলেন। আর সেই কারণেই মিঠুনের এই ইস্তফার সিদ্ধান্ত বলে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে। রাজ্যসভায় তৃণমূলের সংসদ সদস্য হিসেবে মিঠুন চক্রবর্তীর মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে। তার আগেই ইস্তফা দিলেন মিঠুন। তবে মিঠুনের পরিবর্তে রাজ্যসভায় তৃণমূল এখন কাকে পাঠাবে তা এখনও বিস্তারিত জানা যায়নি। তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র ডেরেক ও’ ব্রায়েন এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, স্বাস্থ্যগত কারণে মিঠুন চক্রবর্তী রাজ্যসভা থেকে পদত্যাগ করেছেন। তাঁর ও তাঁর পরিবারের সঙ্গে আমাদের উষ্ণ সম্পর্ক অব্যাহত থাকবে। আমরা তাঁর দ্রুত আরোগ্য কামনা করি।’

Author

ID NO :

Share Button

Comment Following News

E-mail : info@dpcnews24.com / dpcnews24@gmail.com

EDITOR & CEO : KAZI FARID AHMED (Genarel Secratry - DHAKA PRESS CLUB)

Search

Back to Top