টেস্টে ব্যাটিং শ্রেষ্ঠত্বের মুকুটটা নিয়ে এই মুহূর্তে লড়াইটা যাঁর সঙ্গে, সেই বিরাট কোহলিই প্রতিপক্ষ অধিনায়ক। বছর দুয়েক ধরে কোহলি-স্মিথেই সেরার লড়াইটা চলছে। তাতে আপাতত এগিয়ে স্মিথ, বর্তমানে টেস্টের সেরা ব্যাটসম্যান অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক। তবে কোহলির সঙ্গে এই লড়াইই কি তাতিয়ে রাখে তাঁকে? না হলে ভারতকে পেলেই এমন জ্বলে ওঠার কারণ কী! এ নিয়ে কোহলিদের বিপক্ষে টানা পাঁচটি টেস্টে যে সেঞ্চুরি করেছেন স্মিথ!
সব মিলিয়ে ভারতের বিপক্ষে ৭ টেস্টে ৮৮.৮৩ গড়ে ১০৬৬ রান। যেখানে তাঁর ক্যারিয়ার গড় ৬০.৩৪! ৫১ টেস্টে রান ৪ হাজার ৮৮৮।
পুনে টেস্টের তৃতীয় দিনে আজ দুর্দান্ত আরেকটি ইনিংস খেলেছেন স্মিথ। করেছেন সেঞ্চুরি, ২০২ বলের ইনিংসে ১১ চারে ১০৯ রান। তাতেই ভারতের সামনে জয়ের জন্য দুর্গম এক পাহাড় দাঁড় করিয়ে রেখেছে অস্ট্রেলিয়া। সিরিজের প্রথম টেস্টে জিততে হলে ভারতকে চতুর্থ ইনিংসে করতে হবে ৪৪১ রান। যেখানে টেস্ট ইতিহাসে ৪১৮ রানের বেশি তাড়া করে জেতার রেকর্ডই নেই।
ভারত রেকর্ড গড়তে পারবেন কি না, কোহলি আবার দ্বিতীয় ইনিংসে দুর্দান্ত কিছু করে বসেন কি না, সে প্রশ্ন আপাতত তোলা থাকছে। তবে এখন পর্যন্ত এই টেস্ট স্মিথের। এর আগে ভারতের বিপক্ষে টানা যে চারটি টেস্টে সেঞ্চুরি করেছেন, চারটিই অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে। ২০১৪-১৫ মৌসুমে ভারতের অস্ট্রেলিয়া সফরে অ্যাডিলেড, ব্রিসবেন, মেলবোর্ন, সিডনি—চার টেস্টেই স্মিথ পেয়েছিলেন সেঞ্চুরি।
তবে সেগুলোর চেয়েও একটু আলাদা হয়ে থাকবে এই টেস্টের সেঞ্চুরিটি। যার প্রথম কারণ, এই টেস্টটা ভারতের মাটিতে। যেখানে কী অস্ট্রেলিয়া, কী ভারত—সবার কাছেই পিচটাকে মনে হচ্ছে যেন মঙ্গল গ্রহের ভূপৃষ্ঠের মতো, যেখানে কোহলিরাও ব্যাট হাতে হিমশিম খেয়েছেন, সেখানেই স্মিথ কী দুর্দান্ত! দ্বিতীয় কারণটি এই, এর আগের চারটি সেঞ্চুরিই ছিল অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসে। এই প্রথম নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের বিপক্ষে সেঞ্চুরি পেলেন—টেস্টের তৃতীয় ইনিংসে, যখন অশ্বিন-জাদেজাদের স্পিন আরও ভয়ংকর হয়ে ওঠার কথা।
অবশ্য আগের দিনই তিন-তিনবার জীবন পেয়েছেন স্মিথ। তবে সেটি কাজে লাগিয়ে আবার দলের প্রয়োজনে ইনিংসটাকে গড়ে নেওয়াই বা কম কী! অন্য পাশে সঙ্গী বদল হয়েছে বারবার, সবচেয়ে বড় জুটি হয়েছে পঞ্চম উইকেটে মিচেল মার্শের সঙ্গে (৫৬)। এর বাইরে চতুর্থ উইকেটে রেনশর সঙ্গে ৫২ রানের জুটি, স্টার্কের সঙ্গে ৪২, হ্যান্ডসকম্বের সঙ্গে ৩৮, ওয়েডের সঙ্গে ৩৫....সঙ্গী বদল হলেও এতটুকু দমেনি স্মিথের ব্যাট। হয়তো নিজেই বুঝতে পারছিলেন, প্রথম ইনিংসে বোলাররা দুর্দান্ত বোলিং করে যে লিড এনে দিয়েছেন, সেটিকে পাহাড় চড়াতে হলে তাঁকেই কিছু করতে হবে। সেটি দলের অধিনায়ক হিসেবে যেমন, দলের সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবেও। 

শুধু দল নয়, স্মিথ খেললেন আসলে বিশ্বসেরা ব্যাটসম্যানের মতো করেই। নিজের সার্থকতা প্রমাণ করে।

Author

ID NO :

Share Button

Comment Following News

E-mail : info@dpcnews24.com / dpcnews24@gmail.com

EDITOR & CEO : KAZI FARID AHMED (Genarel Secratry - DHAKA PRESS CLUB)

Search

Back to Top