বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ পিলখানায় শহীদ সেনা কর্মকর্তাদের স্মরণে বিএনপি আয়োজিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন সরকারের একজন মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর ইন্ধনে সারাদেশে পরিবহণ ধর্মঘট চলছে। তিনি দাবি করেছেন ফখরুল বলেন, ‘পরিবহণ ধর্মঘটের সঙ্গে পেছনে যিনি মদদ যোগাচ্ছেন তিনি সরকারের একজন প্রভাবশালী মন্ত্রী। আজকে এইভাবে একটি অরাজক পরিবেশ সৃষ্টি করা হচ্ছে। সম্পূর্ণ ব্যক্তি ও দলীয় স্বার্থে দেশব্যাপী পরিবহণ ধর্মঘটের মাধ্যমে গোটা দেশকে ধ্বংস করেছে। সরকার এই সমস্যা সমাধানে ব্যর্থ হয়েছে। দেশে কোনো সরকার বলে আছে কিছু মনে হয় না এমন দাবি করে তিনি বলেন, বিডিআর বিদ্রোহের নিহতদের স্মরণ করে মির্জা ফখরুল বলেন,বাংলাদেেেশর জাতীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে ভেঙে দেয়ার জন্য সুপরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে পিলখানা হত্যাকা- সংগঠিত হয়েছে। স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের উপর বারবার আঘাত এসেছে।দুর্ভাগ্য আমাদের গর্বিত সেনাবাহিনী তা প্রতিহত করেছে।  কিন্তু প্রথম তাদের উপর আঘাত এসেছে সেদিন তাদের পক্ষে কোনো ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হয়নি। আমরা মনে করি এরজন্য দায়ি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ভবিষ্যতে পিলখানা হত্যাকা-ের প্রকৃত অপরাধী যারা তাদেরকে বিচারের আওতায় আনা হবে। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, এটা সম্পূর্ণ অনৈতিক ও অযোক্তিক। উদ্দেশে একটিই শুধু এলএনজির আমদানী করে তাদের লোকেরা বিক্রি করবে।
ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, আজকে বিচার বিভাগ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও মিডিয়া সব নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছে। উদ্দেশ্য একটাই একদলীয় শাসন কায়েম করবে।  বিচারের নামে সরকার মিথ্যা মামলা দিয়ে গোটা দেশকে কারাগারে পরিণত করেছে। বেগম খালেদা জিয়া প্রতি সপ্তাহে কখনো একবার , কখনো দুইবার আদালতে যেতে হচ্ছে।  তারা খালেদা জিয়াসহ বিএনপিকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে চায়। তিনি বলেন, দেশের মানুষ গণতন্ত্রের জন্য সারাজীবন সংগ্রাম করেছে। মানুষ আগামীতেও গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করবে। ফখরুল বলেন, নির্বাচন সম্পর্কে বিএনপির বক্তব্য স্পষ্ট। আমরা নির্বাচন চাই। কারণ বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক দল। কিন্তু সেটা অবশ্যই নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে। সাবেক সেনাপ্রধান ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল(অব:) মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে বক্তব্যে দেন দলের স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব:) রুহুল আলম চৌধুরী, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল আলম চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, নির্বাহী কমিটির সদস্য মেজর (অব:) মিজানুর রহমান মিজান প্রমুখ। আলোচনাসভা সঞ্চালনা করেছেন বিএনপির সহ প্রচার সম্পাদক আলিমুল ইসলাম খান আলিম।

Author

ID NO : রিপোর্টার নানা

Share Button

Comment Following News

E-mail : info@dpcnews24.com / dpcnews24@gmail.com

EDITOR & CEO : KAZI FARID AHMED (Genarel Secratry - DHAKA PRESS CLUB)

Search

Back to Top