গণতন্ত্রের মুক্তির উপর নারীমুক্তি ও নারী অধিকারসহ সবকিছুই নির্ভর বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল বুধবার দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলায় র‌্যালির উদ্ভোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে র‌্যালির আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী মহিলাদল। মির্জা ফখরুল বলেন, আজ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। বিশ্বের জনসংখ্যার অর্ধেক নারী। মানব সভ্যতার ইতিহাসে নারীদের অবদান পুরুষদের সমান। আমাদের একটি জিনিস মনে রাখতে হবে, গণতন্ত্রের মুক্তির উপর নারীমুক্তি, নারীদের স্বাধীনতা, অধিকার এই সবকিছুই নির্ভর করবে। তাই যদি দেশে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা থাকে, যদি আমরা আমাদের অধিকারগুলো প্রয়োগ করা নিশ্চিত করতে পারি তাহলেই কেবল নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারবো। তিনি বলেন, আমরা সবাই জানি- বাংলাদেশে নারীমুক্তি আন্দোলন সূচনা করেছিলেন একজন পুরুষ, তিনি শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান। তিনি উপলব্ধি করেছিলেন নারীদের পিছনে ফেলে রাখলে রাষ্ট্র নির্মাণ সম্ভব হবে না। সেজন্য তিনি মহিলাবিষয়ক মন্ত্রণালয় তৈরি করেছিলেন এবং নারীদের সর্বক্ষেত্রে অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। যার ধারাবাহিকতায় পরবর্তীতে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া নারীদের সেই উদ্যোগকে আরও বেগবান করেছেন। বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে দেশে যে সংকট তা হচ্ছে গণতন্ত্রের সংকট, অধিকারের সংকট। তাই আসুন আন্তর্জাতিক নারী দিবসে শপথ গ্রহণ করি- আমরা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে গণতন্ত্রকে পুন:রুদ্ধার করবো, আমাদের অধিকার রক্ষা করবো এবং নারীদের প্রতি যাতে করে কোনো প্রকার অত্যাচার নির্যাতন না হয় সে ব্যাপারে সোচ্চার হবো। এবং সামনের দিনে রাষ্ট্র নির্মাণে এগিয়ে যাবো। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, নারীর অগ্রগতির পক্ষে বিএনপির যে অবদান তা শেখ হাসিনার তুললা করলে এক ইঞ্চিও হবে না। শেখ হাসিনার অধীনে এত বেশী নারী নির্যাতন যা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। সরকার নিজেদেরকে প্রগতিশীল ভাবেন অথচ শেখ হাসিনার অধীনে এত বেশী নারী শিশু নির্যাতন হয়েছে যা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। তিনি বলেন, আজ গুরুত্বপূর্ণ দিন। আগে এই দিবসটিতে আন্তর্জাতিক শ্রমিক নারী দিবস পালন হতো এখন পূর্ণাঙ্গ নারী দিবসই পালন করা হচ্ছে। নারীরা হিমালয় জয় করছে। তারা আর পিছিয়ে নেই। তারপরও তাদেরকে বিভিন্নভাবে পিছিয়ে রাখা হয়। তারা সহিংসতার স্বীকার হচ্ছে। এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নূরে আরা সাফা, নির্বাহী কমিটির সদস্য খালেদা ইয়াসমিন, নিপুন রায় চৌধুরী, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, সহ-সভাপতি জেবা খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খানসহ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

Author

ID NO : রিপোর্টার নানা

Share Button

Comment Following News

E-mail : info@dpcnews24.com / dpcnews24@gmail.com

EDITOR & CEO : KAZI FARID AHMED (Genarel Secratry - DHAKA PRESS CLUB)

Search

Back to Top