রবিবার, মে ৯, ২০২১
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img
Homeকৃষিরাঙ্গামাটিতে বোরোর বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

রাঙ্গামাটিতে বোরোর বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

রাঙ্গামাটি,  চলতি বোরো মৌসুমে রাঙ্গামাটি জেলার কাপ্তাই ও জুরাছড়ি উপজেলায় বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশী ধান উৎপাদন হওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। কাপ্তাই ও জুরাছড়ি উপজেলার জলে ভাষা জমিসহ অন্যান্য ফসলী জমিতে ধানের ব্যাপক সমারোহে ভরপুর সবুজ প্রান্তর।
জমিতে জমিতে ধানের গন্ধে মৌ মৌ করছে চারপাশ। কৃষাণ-কৃষাণীরা ধান কাটা নিয়ে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। তবে গত বছরের মতো এ বছর ও করোনা ভাইরাসের প্রাদুূর্ভাবে অনেক কৃষক ধান কাটা নিয়ে শ্রমিক সংকটে থাকলে ও ধানের ফলন ভালো হওয়ায় খুশি কৃষকরা। তাই নিজেরাই পরিবারের সকল সদস্য মিলে এখন ধানের ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত বলে জানিয়েছেন কাপ্তাই উপজেলার কৃষক উথোয়াই মং মারমা এবং কৃষক ইসমাইল হোসেন।
কাপ্তাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সামসুল আলম চৌধুরী জানান, এ বছর কাপ্তাই উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের প্রায় ৩৩২ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের ব্যাপক ফলন হয়েছে। যার মধ্যে উফসী জাতের ব্রি-ধান ২৮-১৫০ হেক্টর, ব্রি-ধান-২৯-৭৫ হেক্টর, ব্রি-ধান-৫৮-২৫ হেক্টর, ব্রি-ধান-৭৪ -১০ হেক্টর, হাইব্রিড জাতের হিরা-৩ হেক্টর, সেরা-৩ হেক্টর, নবি -৪ হেক্টর, টিয়া-১ হেক্টর, এসএল ৮ এইস-৬ হেক্টর, আগমনী-৩৯ হেক্টরসহ সর্বোমোট ৩৩২ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের ফলন হয়েছে। এ বছরের কৃষি বিভাগের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১১০০ মেট্রিকটন। তবে এ লক্ষ্যমাত্রা ছেড়ে যেতে পারে বলে কৃষি বিভাগ জানিয়েছেন।
উপজেলার রাইখালী ইউনিয়নের রিফিউজি পাড়া, বড়খোলা পাড়ায় এবং চিৎমরম ইউনিয়নের আমতলী পাড়ায় ধানের ফলন ভালো হয়েছে। তবে কাপ্তাই উপজেলা রাইখালী এবং চিৎমরম ইউনিয়নে সবচেয়ে বেশী ধানের ফলন হয়েছে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।
ইতিমধ্যে উপজেলার প্রত্যেকটি ইউনিয়নে ধান কাটা শুরু হয়ে গেছে। এইবার ধানের ব্যাপক ফলন হওয়ায় কৃষকেরা আশানুরূপ ফলন গোলায় তুলতে পারবে বলে কৃষকদের আশা ।
চলতি মৌসুমে রাঙ্গামাটি জেলায় কাপ্তাই হ্রদের জলে ভাসা ১৯০০ হেক্টর জমিতে বোরো চাষ হয়েছে। সরকারি ভাবে বোরো প্রণোদনার আওতায় কৃষকদের বীজ ধান ও বিনামূল্যে সার দেয়া হয়েছে। ফলে বোরোতে এবার ভালো ফলন ভালো হয়েছে বলে আশা করা হচ্ছে। এতে ৫ হাজার ৩২০ মেট্রিক টন চাল উৎপাদন করা সম্ভব হবে আশা করা হচ্ছে।
এেিদক চলতি মৌসুমে রাঙ্গামাটির জুরাছড়ি উপজেলায় জমিতে যে বোরো ধান লাগানো হয়েছে তা কর্তনের উপযোগী হয়ে উঠেছে। আর এবার ফলনও ভালো হয়েছে। যদি প্রাকৃতিক দুূর্যোগ না হয় তা হলে জুরাছড়ি উপজেলায় ২ হাজার ৮০ মেট্রিক টন চাল উৎপাদন করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুষ্মিতা চাকমা।
রাঙ্গামাটি কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক কৃষ্ণ প্রসাদ মল্লিক জানান, প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও শুষ্ক মৌসুমে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় বোরো ধানের ভালো ফলন হয়েছে। তিনি জানান, কাপ্তাই হ্রদে জেগে উঠা সমতল জলেভাসা জমিসহ অন্যান্য জমিতে বোরো ধানের চাষাবাদ হয়।
ইতিমধ্যে রাঙ্গামাটির বিভিন্ন উপজেলার প্রত্যেকটি এলাকায় ধান কাটা শুরু হয়ে গেছে। এইবার ধানের ব্যাপক ফলন হওয়ায় যদি কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হয় কৃষকেরা আশানুরূপ ফলন গোলায় তুলতে পারবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

অন্যান্য সংবাদ
- Advertisment -spot_img
bn Bengali
X
%d bloggers like this: